আন্তর্জাতিক ডেস্ক
মার্কিন নির্বাচনের মাত্র ১১ দিন আগে হিলারি ক্লিনটনের ব্যক্তিগত ইমেইল ব্যবহারের বিষয়ে নতুন করে তদন্ত শুরু করার সিদ্ধান্তকে তীব্র সমালোচনা করেছে হিলারির প্রচারণা শিবির।

একটি নির্বাচনী প্রচারণায় হিলারি ক্লিনটন বলেছেন নির্বাচনের দুই সপ্তাহের কম সময় আগে এফবিআইএর এই ঘোষণা নজিরবিহীন ও গভীর সমস্যাগ্রস্ত। এদিকে এফবিআইএর পরিচালক বলছেন নতুন এই ইমেইলের বিষয়ে জানানোটা তিনি নৈতিকতা বোধ থেকে করছেন ।

তিনি আরো বলছেন আমেরিকার জনগণকে তিনি ভুল পথে পরিচালিত করতে চান না। বিস্তারিত জানাচ্ছেন শায়লা রুকসানা।

ফ্লোরিডাতে নির্বাচনী প্রচারণায় প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী ডেমোক্র্যাট দলের হিলারি ক্লিনটন বলেছেন এটা শুধু অদ্ভুত নয় নজিরবিহীনও বটে।

মিসেস ক্লিনটন আরো বলেছেন এটা গভীর সমস্যা-যুক্ত কারণ ভোটাররা সবটুকু জানার অধিকার রাখে। তবে মিসেস ক্লিনটনের বিশ্বাস, নতুন তদন্তে আগের সিদ্ধান্তের কোন পরিবর্তন হবে না।

এফবিআই এর পরিচালক মি.কোমি হিলারির সমর্থকদের দ্বারা তীব্রভাবে সমালোচিত হয়েছেন।

নিউইয়র্ক টাইমস বলছে দেশটির বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদেরকেও সমালোচনা করা হয়েছে -নির্বাচনের এত কাছে এসে বিষয়টি জনগণের সামনে নিয়ে আসার জন্য।

তবে এফবিআই পরিচালক জেমস কোমি বলেছেন তারা সাধারণভাবে কংগ্রেসকে বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত করেনি। মি. কোমি বলেছেন তিনি আমেরিকার জনগণকে ভুল পথে পরিচালিত করতে চাননা।

এদিকে এই পরিস্থিতিকে পুরোপুরি কাজে লাগানোর চেষ্টা করছে বিরোধী রিপাবলিকান ট্রাম্প শিবির।

মি. ট্রাম্প বলেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতির ইতিহাসের ওয়াটারগেট কেলেঙ্কারির পরেই হিলারির ইমেইলের বিষয়টি সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক কেলেঙ্কারি।

শনিবার কলোরাডোতে এক জনসভায় তিনি বলেন হিলারির ব্যক্তিগত ইমেইল সার্ভার ব্যবহার করাটা ইচ্ছাকৃত,উদ্দেশ্যপ্রনোদিত।

২০১৫ সালে প্রথম হিলারি ক্লিনটন বিরুদ্ধে অভিযোগটি উঠলেও তদন্তের পর গুরুতর কিছু পাওয়া যায়নি বলে এফবিআই জানিয়েছিল। এ কারণে তার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ না আনার সিদ্ধান্ত নেয় সংস্থাটি।সূত্র:বিবিসি

LEAVE A REPLY