বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন কর্তৃক অনুমোদিত বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদ নিয়ে কর্তৃপক্ষের প্রতি বাংলাদেশ বার কাউন্সিল ৪ দফা নির্দেশনা দিয়েছে। নির্দেশনা অনুযায়ী সকল তথ্য নথি আকারে আগামী ১০ নভেম্বরের বার কাউন্সিলে পাঠাতে বলা হয়েছে। উক্ত তথ্য ও নথিসমূহ যথা সময়ে যথাযথভাবে প্রেরণ করতে ব্যর্থ হলে সংশ্লিষ্ট বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বার কাউন্সিল থেকে রেজিস্ট্রেশন দেওয়া হবে না।

গতকাল সোমবার (৩১ অক্টোবর) বার কাউন্সিল সচিব আ.ক.ম জহুরুল আলম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব বিষয়ে জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তির নির্দেশনা অনুযায়ীঃ-

১. বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন কর্তৃক আইন অনুষদকে অনুমোদনের সময় শিক্ষার্থীর আসন সংখ্যা অনুমোদনের কপি ও আইন অনুষদ অনুমোদনের কপি বার কাউন্সিলে দাখিল করতে হবে।

২. যে সকল বিশ্ববিদ্যালয় সেমিস্টার প্রতি ৫০ এর বেশি শিক্ষার্থী ভর্তি করেছেন তারা ইউজিসি নির্ধারিত সংখ্যার অধিক সংখ্যক শিক্ষার্থী নিয়ে কিভাবে শিক্ষাদান কার্যক্রম পরিচালনা করেছেন, সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে লিখিত ব্যাখ্যা প্রদান করতে হবে।

৩. বার কাউন্সিলের চাহিদানুযায়ী যে সকল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এখনো বার কাউন্সিলে ‘অঙ্গীকারনামা’ জমা জমা দেয়নি বা জমা দিলেও সেটি বার কাউন্সিলের প্রদত্ত নমুনা মোতাবেক হয়নি সে সকল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে যথাযথভাবে ‘অঙ্গীকারনামা’ প্রদান করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

৪. বার কাউন্সিলের চাহিদানুযায়ী যে সকল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এখনো তাদের ল’ গ্র্যাজুয়েটদের তালিকার (৪ বছর মেয়াদী অনার্স) কপিসমূহ (নমুনা মোতাবেক হার্ড-কপি ও সফট-কপি) বার কাউন্সিলে প্রেরণ করেননি, সে সকল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে যথাযথভাবে নমুনা অনুযায়ী তালিকা সংকলনপূর্বক বার কাউন্সিলে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

 

তবে ইতোমধ্যে যে সকল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বার কাউন্সিলের চাহিদানুযায়ী যথাযথভাবে সকল প্রকার নথি ও তথ্যাদি জমা দিয়েছেন, সে সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ধারাবাহিকভাবে পর্যায়ক্রমে রেজিস্ট্রেশন কার্ড প্রদান করা হবে এবং সে ব্যাপারে যথাসময়ে বার কাউন্সিলের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে (www.barcouncil.gov.bd) ও নোটিশ বোর্ডে জানানো হবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

LEAVE A REPLY