ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরের হিন্দুপল্লীতে আবারও হামলা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলায় ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘর ও মন্দিরে হামলার পর এই অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে।

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে উপজেলা শহরের মধ্যপাড়া ও দক্ষিণপাড়ার কয়েকটি বাড়িয়ে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা। আগুনে সংকরপাড়ার ২টি, বণিকপাড়ার ১, ঠাকুরপাড়ার ১টি ও পশ্চিমপাড়ার ১টি ঘর পুড়ে গেছে।

তবে এ ঘটনায় হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার (এসপি) মিজানুর রহমান জানান, রাত ৩টা থেকে সাড়ে ৩টার মধ্যে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে।

তিনি জানান, আগুন ছয়টি গোয়ালঘর ও একটি পরিত্যক্ত পূজার ঘর পুড়ে যায়।

এ ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করে গ্রেফতারে পুলিশ কাজ করছে বলেও জানান পুলিশ সুপার।

স্থানীয়রা জানান, হামলার ধরন দেখে তাদের কাছে এ ঘটনাকে পরিকল্পিত বলেই মনে হয়েছে। তাদের মতে, একই সময়ে দুর্বৃত্তদের কয়েকটি দল একযোগে আগুন লাগিয়ে পালিয়ে যায়।

এদিকে নাসিরনগরে হিন্দুদের ওপর হামলার ঘটনায় পুলিশ সদর দফতর থেকে চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি মো. সাখাওয়াত হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত এ তদন্ত কমিটিকে আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দেয়ার নির্দেশনা রয়েছে।

প্রসঙ্গত, ফেসবুকে ইসলাম অবমাননার অভিযোগ তুলে রোববার দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত নাসিরনগরে ১৫টি মন্দিরসহ হিন্দুদের শতাধিক বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়। এ ঘটনার জেরে পাশের জেলা হবিগঞ্জের মাধবপুরেও দুটি মন্দিরেও হামলা হয়। তারা মন্দির, হিন্দুদের বাড়িঘর এবং দোকানপাটে হামলা ও ভাংচুর চালায়। লুটপাট করে।

এ নিয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের কয়েক হাজার মানুষ চরম আতংকে রয়েছেন। এ ঘটনায় ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মোতায়েন করা হয়েছে বিজিবি, র‌্যাব ও অতিরিক্ত পুলিশ।

LEAVE A REPLY