সকাল থেকেই আকাশ মেঘাচ্ছন্ন, গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিও হচ্ছিল। এর মধ্যেই দুপুরের দিকে আকাশটা একটু পরিষ্কার হয়ে এসেছিল। সে সুযোগে ঠিক সময়ে টস হয়ে গিয়েছিল। মুদ্রা নিক্ষেপে মাশরাফিকে হারিয়ে এমন আবহাওয়ায় ফিল্ডিং নিতে মোটেও দ্বিধায় ভোগেননি রাজশাহী কিংস দলপতি ড্যারেন স্যামি। এরপর ছোটখাটো একটা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানও হয়েছিল। সেখানে উভয় দলের খেলোয়াড়দের সঙ্গে পরিচয় পর্ব শেষে বেলুন উড়িয়ে বিপিএল চতুর্থ আসরের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। কিন্তু খেলা শুরুর সময় আবার নামে বৃষ্টি। বিরামহীনভাবে চলতে থাকা ঝিরিঝিরি বৃষ্টির কারণে বিকেল ৪.৫০ মিনিটে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স বনাম রাজশাহী কিংসের ম্যাচটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়। দ্বিতীয় ম্যাচে অবশ্য টসের সুযোগ মেলেনি। দীর্ঘ অপেক্ষার পর রাত ৯.২৫ মিনিটে রংপুর রাইডার্স বনাম খুলনা টাইটানসের ম্যাচটিও পরিত্যক্ত হয়। ফলে বিপিএল চতুর্থ আসরের প্রথম দিনে দুটি ম্যাচই বৃষ্টিতে ভেসে গেল।

দুপুরে টসের পর কাভার খানিকটা সরিয়ে নেওয়া হয়েছিল। বৃষ্টি নামলে পুরো মাঠ আচ্ছাদনে ঢেকে দেওয়া হয়। এরপর মাঠ থেকে আর কাভার সরানো যায়নি। ন্যূনতম ৫ ওভারের ম্যাচ আয়োজনের জন্য শেষ সময় ছিল বিকেল ৫টা ১৬ মিনিট। কিন্তু অবস্থা বুঝে ২৫ মিনিট আগেই খেলা পরিত্যক্ত করে কুমিল্লা ও রাজশাহীকে ১ পয়েন্ট করে দেওয়া হয়। ছুটির দিন বলেই হয়তো বৃষ্টি উপেক্ষা করেও অনেক দর্শক মাঠে এসেছিলেন বিপিএল উপভোগ করতে। যখন প্রথম ম্যাচটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয় তখনও বৃষ্টিতে ভিজে প্রায় হাজার পাঁচেক দর্শক বসেছিলেন গ্যালারিতে। অবশ্য ৫টা বাজার ১০ মিনিট আগে খেলা পরিত্যক্ত ঘোষণার পর তাদের মনোরঞ্জনের একটা ব্যবস্থা করে বিসিবি। দুই ম্যাচের বিরতির সময় শুরু হয় আইয়ুব বাচ্চুর কনসার্ট। তখনও বৃষ্টি থামেনি। ছাতা মাথায় দিয়ে কোনো রকমে প্রায় ৪০ মিনিটের মতো গান পরিবেশন করেছেন দেশের নামি এ ব্যান্ড শিল্পী। সন্ধ্যা নামার পরপরই আতশবাজি ফোটানো হয়। বৃষ্টির কারণে আতশবাজির খেলাটাও খুব একটা জমেনি। যেহেতু বিক্রীত টিকিটের টাকা ফেরত দেওয়া হবে না এবং এক দিনের টিকেট দিয়ে অন্য ম্যাচ দেখা যাবে না তাই বৃষ্টিতে ভিজে কনসার্ট দেখেই পয়সা উসুল করতে হয়েছে দর্শকদের।

সন্ধ্যা ৭টার দিকে বৃষ্টি কিছুটা কমে এলে মাঠকর্মীরা কাভার ওঠানো শুরু করেছিলেন। কিন্তু তারা কাজে হাত দেওয়ার মিনিট পাঁচেকের মধ্যেই আবার গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি শুরু হয়ে যায়। তাই আবার তাদেরকে পুরো মাঠ ঢেকে দিতে হয়। বৃষ্টির কারণে গতকাল আর মাঠ থেকে কাভার ওঠানো যায়নি। দ্বিতীয় ম্যাচটি ছিল রংপুর রাইডার্স এবং খুলনা টাইটানসের মধ্যে। এ খেলার ম্যাচ রেফারি নিয়ামুর রশিদ রাহুল জানিয়েছিলেন, সর্বোচ্চ রাত ১০টা পর্যন্ত দেখবেন তারা। এ সময়ের মধ্যে মাঠ খেলার উপযোগী হলে সর্বনিম্ন ৫ ওভারের ম্যাচ হবে। কিন্তু বৃষ্টি থামার কোনো লক্ষণ না দেখে ৩৫ মিনিট আগেই ম্যাচ পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়।

আবহাওয়ার যা পরিস্থিতি তাতে দ্বিতীয় দিনের খেলাও না হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপের প্রভাবে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে আরও দুই দিন বৃষ্টি হতে পারে। বিদেশি কিছু আবহাওয়া ওয়েবসাইট অবশ্য জানিয়েছে, মঙ্গলবারেও বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। তাই এবারের বিপিএলের প্রথম দিকের ম্যাচগুলো বৃষ্টির কবলে যে পড়েছে সেটা এখনি বলে দেওয়া যায়।

LEAVE A REPLY