রাস্তা ও ফুটপাত দখলমুক্ত করতে আদালতের নির্দেশনা অমান্য করায় রাজধানীর চার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) বিরুদ্ধে কেন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে না তা জানতে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট বিভাগ । আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে সংশ্লিষ্টদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। ওই চার পুলিশ কর্মকর্তা হলেন, বংশাল থানার ওসি নুর-ই আলম সিদ্দিকী, সুত্রাপুর থানার ওসি আশরাফ উদ্দিন, কোতোয়ালি থানার ওসি আবুল হাসান ও শাহবাগ থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিকী।

সোমবার বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী ও বিচারপতি কাজী ইজারুল হক আকন্দের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বিভাগের বেঞ্চ আদালত অবমাননার এক আবেদনের শুনানি শেষে এ রুল জারি করেন।

রাজধানীর জিরো পয়েন্ট থেকে সদরঘাট পর্যন্ত এলাকার রাস্তা ও ফুটপাত দখলমুক্ত করতে আদালতের নির্দেশনা অনুসরণ না করায় তাদের বিরুদ্ধে এই রুল জারি করেন হাইকোর্ট বিভাগ।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ।

এর আগে গতকাল রোববার তিনি হিউম্যান রাইটস এন্ড পিস ফর বাংলাদেশের পক্ষে হাইকোর্ট বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিটটি দায়ের করেন।

মনজিল মোরসেদ বলেন, হাইকোর্ট বিভাগের রায়ের পর এখনও দখলমুক্ত হয়নি রাস্তা ও ফুটপাত। এ বিষয়ে চার থানার ওসিকে লিগ্যাল নোটিশ দেয়া হলেও জবাব আসেনি। এ জন্য রিটটি দায়ের করা হয়।

তিনি আরও বলেন, হিউম্যান রাইটস এন্ড পীস ফর বাংলাদেশের করা এক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১২ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্ট বিভাগ এক রায়ে রাজধানীর জিরো পয়েন্ট থেকে সদরঘাট পর্যন্ত ফুটপাত ও রাস্তা পরিষ্কার রাখাসহ যানবাহন চলাচল নির্বিঘ্ন রাখতে সরকারকে নির্দেশ দেন।

আদেশে বলা হয়, জিরো পয়েন্ট থেকে সদরঘাট পর্যন্ত ফুটপাত বা রাস্তার ওপর বালু, রড বা যে কোনো পণ্য রাখা, ভ্যানগাড়ি এবং ঠেলাগাড়ি পার্কিং করা, রাস্তার পাশে দোকানগুলোর পণ্যসমূহ ফুটপাত বা রাস্তা দখল করে না রাখা, দোকান ও ফেরিওয়ালা, ফলের দোকান না বসতে পারে সে জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

এতে বলা হয়, অন্যথায় আদালত অবমাননার আবেদন করা হবে। এর ধারাবাহিকতায় রোববার আদালত অবমাননার আবেদনটি করা হয়। আর আজ আদালত শুনানি নিয়ে এ বিষয়ে চার থানার ওসির প্রতি রুল ওই রুল জারি করেন।

LEAVE A REPLY