ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অভিষেক টেস্ট সিরিজেই সবাইকে চমকে দিয়ে ক্রিকেটের বিস্ময় বালক হিসেবে পরিচিতি পাওয়া মেহেদী হাসান মিরাজকে সংবর্ধনা দিল ওয়ালটন গ্রুপ।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ওয়ালটনের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা উপহার হিসেবে মিরাজের হাতে তুলে দেওয়া হয় এক লক্ষ টাকার চেক, ‘টোকেন অব লাভ’। সঙ্গে ওয়ালটন ব্র্যান্ডের ‘প্রিমো এক্স-ফোর’ মডেলের মোবাইল ফোন সেট।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে মিরাজ বলেন, আমি ওয়ালটনের কাছে কৃতজ্ঞ। ক্রিকেটের পাশাপাশি ক্রিকেটারদেরও যথাযথ মূল্যায়ন করে ওয়ালটন। অ্যাম্বাসেডর হিসেবে ওয়ালটনের সম্মান বাড়াতে ভবিষ্যতে আরো ভালো পারফর্ম করার চেষ্টা করব। আমি চাই আরো অন্তত ১৫ বছর ক্রিকেট খেলে বাংলাদেশকে বিশ্বের বুকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে।

 

মিরাজের প্রত্যাশা, বাংলাদেশ একদিন বিশ্বকাপ জিতবে, ওয়ালটনও বিশ্বের এক নম্বর ইলেকট্রনিক্স পণ্যের ব্র্যান্ড হবে।

ওয়ালটনের অপারেটিভ ডিরেক্টর উদয় হাকিম বলেন, মিরাজকে ওয়ালটন আগেই চিনেছিল। যখন তার কোনো তারকাখ্যাতি ছিল না, তখন ওয়ালটন তাকে অ্যাম্বাসেডর নিয়োগ দিয়েছে। ওয়ালটন তারকার চেয়ে জিনিয়াসদের বেশি মূল্যায়ন করে। বাংলাদেশের ক্রিকেটের উন্নয়নে আগামী দিনগুলোতেও ওয়ালটন কাজ করে যাবে।

অনুষ্ঠানে এসএম জাহিদ হাসান বলেন, বিশ্ব ক্রিকেট ১২৯ বছর অপেক্ষায় ছিল, একজন মিরাজ আসবে বলে। বাংলাদেশ নিয়ে এলো সেই বিস্ময় বালককে।


মো. হুমায়ুন কবীর বলেন, মিরাজের জন্য বাংলাদেশ আজ গর্বিত। আশা করি মিরাজও একদিন বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার হবেন। দীর্ঘদিন বাংলাদেশের ক্রিকেটকে সার্ভিস দিয়ে যাবেন।

উল্লেখ্য, মিরাজ ওয়ালটন গ্রুপের ইয়্যুথ অ্যাম্বাসেডর। বছর খানেক আগে তাকে ইয়্যুথ অ্যাম্বাসেডর করেছিল বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনে বহুল পরিচিত পৃষ্ঠপোষক ওয়ালটন গ্রুপ। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অভিষেক টেষ্ট সিরিজের দুই ম্যাচে ১৯ উইকেট নিয়ে ম্যান অব দি সিরিজ এবং শেষ ম্যাচে ১২ উইকেট নিয়ে ম্যান অব দ্য ম্যাচ হয়েছেন মিরাজ।

আজ সোমবার মতিঝিলে ওয়ালটনের মিডিয়া অফিসের কনফারেন্স হলে আয়োজিত ওই সংবর্ধনায় উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক (পলিসি এ্যান্ড এইচআরএম) এসএম জাহিদ হাসান, নির্বাহী পরিচালক (পিআরএ্যান্ড মিডিয়া) মো. হুমায়ুন কবীর, অপারেটিভ ডিরেক্টর উদয় হাকিম, ফাস্র্ট সিনিয়ার ডেপুটি ডিরেক্টর মোহাম্মদ ফারুক আজম, সিনিয়র ডেপুটি ডিরেক্টর ফিরোজ আলম, রবিউল আলম ভুঁইয়া ও জাহিদুল ইসলাম, সহকারি পরিচালক রবিউল ইসলাম মিল্টন প্রমূখ।

LEAVE A REPLY