নারী থেকে পুরুষে রূপান্তরিত হলেন আদরী বেগম

প্রাকৃতিকভাবে নারী থেকে পুরুষে রূপান্তরিত হওয়া বগুড়ার শাজাহানপুরের আকাশকে দেখতে প্রতিদিন হাজারো উৎসুক মানুষ তাদের বাড়িতে ভিড় করছে। ঘটনার ৭দিনের মাথায় গত বৃহস্পতিবার দুপুরে ইসলামী শরিয়াহ মোতাবেক আকিকা করে আদরীর বেগমের নাম মো. জোবায়ের আহমেদ আকাশ রাখা হয়। আকিকায় আমন্ত্রণ জানানো হয় স্বজন, প্রতিবেশি এবং পুরো গ্রামবাসীকে।

জানা যায়, উপজেলার চোপীনগর ইউনিয়নের বৃ-কুষ্টিয়া ফকিরপাড়ার দিনমজুর উল্লাস ফকিরের ২ মেয়ে ও ১ ছেলের মধ্যে আদরী বেগম সবার বড়। এক বছর আগে পার্শ্ববর্তী আমরুল ইউনিয়নের ডেমাজানী গ্রামের লুৎফর রহমানের ছেলে আব্দুল করিমের সঙ্গে আদরী বেগমের বিয়ে হয়। ৭ মাস ঘর-সংসার করার পর পারিবারিক সমস্যার কারণে ৩ মাস আগে উভয়ের মধ্যে তালাক সম্পন্ন হয়। তখন থেকেই আদরী বেগম বাবার বাড়িতে অবস্থান করছিলেন।

গত ২৮ সেপ্টেম্বর শুক্রবার রাত ৯-১০টার সময় প্রতিদিনের মতো খাওয়া-দাওয়া শেষে বিছানায় ঘুমিয়ে পড়েন আদরী। পরের দিন সকালে ঘুম থেকে জেগে শারীরিক আকৃতি পরিবর্তন দেখতে পান তিনি। এরপর প্রথমে তার দাদা-দাদী, ফুপা ও প্রতিবেশীকে বিষয়টি জানান।

চোপীনগর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আবুল ফকির জানান, গত বৃহস্পতিবার দুপুরে আকাশের বাবার বাড়িতে সামর্থ্য অনুযায়ী আকিকার আয়োজন করা হয়েছিল। সে আকিকায় আমাকেও দাওয়াত করেছিল। এ অনুষ্ঠানে আমি ছাড়াও আত্মীয়-স্বজন ও গ্রামবাসী উপস্থিত ছিলেন। অনেকটাই ধুমধাম করে আকিকা অনুষ্ঠানটি করেছিল। এ আকিকায় আদরী বেগমের নাম রাখা হয় জোবায়েদ আহমেদ আকাশ। আকাশকে দেখার জন্য এখনও প্রতিদিন উৎসুক মানুষ তাদের বাড়িতে ভিড় করছে।

উপজেলার ডেমাজানী গ্রামের সাবেক স্বামী করিম সেখ বলেন, প্রায় এক বছরের সংসার জীবনে পারিবারিক কারণে তিন মাস আগে আদরী বেগমের সঙ্গে আমার ছাড়াছাড়ি হয়। যখন আমরা স্বামী-স্ত্রী ছিলাম, তখন আদরী বেগম স্বাভাবিক মেয়ের মতোই ছিল। কিন্তু কয়েকদিন আগে আদরীর ছেলে হওয়ার সংবাদ প্রথমে আমি অবিশ্বাস করেছিলাম, তারপর আকিকা অনুষ্ঠানে যাওয়ার লোকদের কাছে শুনে বিশ্বাস করলাম।

আদরীর মা তাছলিমা বেগম জানান, গত ২৮ অক্টোবর শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে শুয়েছিল আদরী। হঠাৎ কাঁপুনি শুরু হয়, একই সঙ্গে তীব্র ব্যাথা। এরপর থেকে ধীরে ধীরে আদরীর শারীরিক পরিবর্তন শুরু হয়। নাম বদলে নতুন নাম রাখতে বৃহস্পতিবার দুপুরে পুরো গ্রামের মানুষ আকিকা অনুষ্ঠানে যোগ দেয়।

আদরীর বাবা উল্লাস ফকির বলেন, আমার মেয়ে ছেলে হয়েছে মহান সৃষ্টিকর্তার ইচ্ছায়। আদরী বেগম জোবায়ের আহমেদ আকাশ হওয়ায় আমি খুশি। ধর্মীয় বিধান মেনে তার আকিকা দেওয়া আমার কর্তব্য। মেয়ে থেকে ছেলে হওয়া আকাশ এখন স্বাভাবিক ছেলের মতো সবকিছু করতে পারবে।

শাজাহানপুর উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার ও পরিকল্পনা বিষয়ক কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ মোতারাব হোসেন জানান, বিষয়টি লোকজন এবং পত্রিকার সংবাদে জানতে পারলাম। হরমোনজনিত পরিবর্তনের কারণে শরীরিক কাঠামোতে পরিবর্তন আসতে পারে। তবে আদরী সম্পর্কে পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়া কিছু বলা যাবে না।

LEAVE A REPLY