সোসাইটিনিউজ ডেস্ক:- আসতে আসতে ধীরে শীত ঝেঁকে বসেছে। ঋতুর এ পরিবর্তনের হাওয়া লেগেছে পোষাকেও। ফ্যাশন সচেতন তরুণ-তরুণীদের মাঝে এ পরিবর্তনের ছোঁয়া লাগছে সবচেয়ে বেশি। শীতকে কেন্দ্র করে নানা রঙ আর ঢঙ এর পোষাক আসে বাজারে।

শীতের ফ্যাশন কেমন হতে পারে তা ডিজাইনারদের মতে অনেক টা এমন যে, দেশীয় ফ্যাশন হাউসগুলো সব সময়ই দেশি উপকরণ নিয়ে কাজ করে। সালোয়ার কামিজ পরা মেয়েদের জন্য আছে লং জ্যাকেট, পঞ্চ। ফুলহাতা উজ্জ্বল রঙের লম্বা পাঞ্জাবিও আছে। যা চুড়িদার পায়জামার সাথে পরে তার ওপর একটা শাল জড়িয়ে নিলে ফ্যাশনও হবে, হবে আরামও।এখন তরুণীরা পছন্দ করছে মোটা কাপড়ের টপস, লেগিংস আর বাহারি ডিজাইনের কার্ডিগেন। শাড়ির ক্ষেত্রে ফুলস্লিভ ব্লাউজ আর শাড়ির সাথে মিলিয়ে শাল জড়িয়ে হয়ে উঠতে পারেন অনন্য। টি শার্ট বা শার্ট পরলে উপরে পরতে পারেন হাতা কাটা সোয়েটার। অথবা একটু ঢিলেঢালা পুলওভার।

ছেলেদের জন্য শীত উপলক্ষে জ্যাকেটের পাশাপাশি ফুলহাতা টিশার্ট, ফুলহাতা শার্ট, খদ্দর কাপড়ের আরামদায়ক ট্রাউজারও আছে।এবারে শীতে আঁটসাঁট নয় বরং ঢিলেঢালা পোশাকই পরতে আগ্রহী কিশোরী আর তরুণীরা। পশমি বা উলের ক্রুসকাটার কাজ করা সোয়েটার পরছেন অনেকেই। সোজা কাটের পোশাকের সাথে বেছে নিতে পারেন হাঁটু পর্যন্ত লম্বা ব্লেজার।
জ্যাকেট আর ব্লেজারের সংমশ্রিণে তৈরি নতুন ধরনের শীতের পোশাক উঠে আসছে তরুণদের পছন্দের তালিকায়। অফিসের প্রয়োজনে ব্লেজার পরতে পারেন। তবে আগের মত আর সাদা, কালো বা ছাই রঙের ব্লেজার নয়। এবার বেছে নিতে পারেন গাঢ় মেরুন, কালো হলুদের মিশ্রণ, বেগুনি, পার্পেল রঙের ব্লেজার। এ ছাড়া হুডি জ্যাকেটও ধরে রাখছে হাল ফ্যাশনের আবেদন। আর মাফলার তো আছেই। ছেলে-মেয়ে সবার পছন্দের র্শীষে উঠে এসেছে রঙিন মাফলার।

  • খুঁজে পাবেনঃ- ফ্যাশন হাউজগুলো বাজার দেশিদশ, নিত্য উপহার, মেঘ, সমীরণ, বার্ডস আই, বিন্দু, অঞ্জনস এ পাবেন শীতের পোশাক। এ ছাড়া ঢাকা নিউমার্কেট, হকার্স মার্কেট, বঙ্গ বাজার ও ঢাকা কলেজের সামনে শীতরে কাপড়ের পসরা সাজিয়ে বসেছেন দোকানিরা। উত্তরায় মাসকাট প্লাজা, বনানীতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ফ্যাশন হাউজগুলোতেও যেতে পারেন পছন্দের পোশাকের খোঁজে।
  • দরদাম:- ডিজাইনের উপর পোশাকের দামেরও ভিন্নতা আছে। বিভিন্ন ধরণের চামড়ার নকশা করা জ্যাকটে কেনা যাবে ১৮০০-৫০০০ টাকায়। ক্যাজুয়াল ব্লেজারের দাম পড়বে ১৫০০-৪০০০ টাকা। হুডি জ্যাকেট বা সোয়েটার দোকান ভেদে দাম পড়বে ৯০০-২৫০০ টাকা। আর উলের সোয়েটার ৭০০-২৮০০ টাকা পর্যন্ত দামে পাওয়া যাচ্ছে।

তাঁতের শালগুলোর দাম পড়বে ৮০০-১৫০০ টাকা। আর বিভিন্ন ধরণের কাজ করা শালের দাম ১২০০ থেকে ৩০০০ টাকা পর্যন্ত। অনেকের খদ্দরের শাল পছন্দ বলে বেশি শীতের জন্য খদ্দরের ভারী শালও আছে। হাল্কা, মাঝারি আর ভারী এই তিন ধরণের শালই বাজারে পাওয়া যায়।তবে হ্যাঁ আপনার পছন্দের ফ্যাশন হতে হবে আরামদায়ক এবং শীত নিবারণী।

 

LEAVE A REPLY