এশিয়ার মধ্যে সমকামী বিয়েকে বৈধতা দেয়ার ক্ষেত্রে প্রথম দেশ হতে যাচ্ছে তাইওয়ান ।  বিয়ের ক্ষেত্রে সমতাকে সমর্থন দিয়ে তাইওয়ানে আইন প্রণেতারা সমকামী বিয়ে-বিষয়ক তিনটি বিল নিয়ে কাজ করছেন। এর মধ্যে একটি ইতিমধ্যে পুনর্মূল্যায়নের জন্য তালিকাভুক্ত হয়েছে। কয়েক মাসের মধ্যে বিলটি পাস করা হতে পারে। একই লিঙ্গে বিয়ের বিষয়ে দেশটির প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট সাই ইং ওয়েনেরও সমর্থন রয়েছে।
নারী সমকামী, পুরুষ সমকামী, উভলিঙ্গ ও তৃতীয় লিঙ্গদের (লেসবিয়ান, গে, বাইসেক্সুয়াল, ট্রান্সজেন্ডার-এলজিবিটি) পারিবারিক অধিকার-বিষয়ক আইনি পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের মুখপাত্র সেং ইয়েন-জুং স্থানীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের এক জরিপের তথ্য তুলে ধরে জানিয়েছেন, ২০ থেকে ২৯ বছর বয়সী ৮০ শতাংশ তাইওয়ানি সমকামী বিয়ে সমর্থন করেন।
তাইওয়ানের ইউনাইটেড ডেইলি নিউজ চার বছর আগে এ বিষয়ে একটি জরিপ চালায়। ওই জরিপে দেশটির ৫৫ শতাংশ সমকামী বিয়ের পক্ষে মত দেন। আর বিরোধিতা করেন ৩৭ শতাংশ।
এসব জরিপের মাধ্যমে বহুদলীয় গণতন্ত্র ও অন্যান্য বিষয়কে তাইওয়ানের গ্রহণ করার প্রস্তুতির চিত্রই ফুটে উঠেছে। একই সঙ্গে সেখানে ধর্মের বিষয়টিও আছে। তাইওয়ানের ২ কোটি ৩০ লাখ মানুষ বৌদ্ধ ধর্ম ও প্রচলিত চৈনিক ধর্ম পালন করে। আর এই ধর্মগুলোতে যৌনবিষয়ক শিক্ষা বা সমকামী বিয়ের ক্ষেত্রে কোনো কট্টর অবস্থান নেই।
সমকামী বিয়েকে বৈধতা দেওয়ার মধ্য দিয়ে তাইওয়ান কানাডা, কলম্বিয়া, আয়ারল্যান্ড, যুক্তরাষ্ট্রসহ ১৬টি দেশের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে। গত ১৫ বছরে এসব দেশ সমকামী বিয়েকে বৈধতা দিয়েছে।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইন

LEAVE A REPLY