ক্রীড়া ডেস্ক

শাহরিয়ার নাফিস ও ডেভিড মালানের জোড়া ফিফটিতে চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে ৭ উইকেটের জয় পেয়েছে বরিশাল বুলস। শুরুতে অবশ্য বিপদে পড়ে বরিশাল। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে উইকেট উদযাপনে মাতে চিটাগং। বরিশাল ওপেনার জশ কবের (৬) স্ট্যাম্প ভাঙেন পেসার শুভাশিষ রায়। কিন্তু, এরপর জুটি গড়েন নাফিস ও মালান। এবারের আসরে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা নাফিস চতুর্থ ম্যাচে এসে তৃতীয় ফিফটি তুলে নিয়েছেন। ইংলিশ ব্যাটসম্যান মালানও অর্ধশতক হাঁকিয়েছেন। মালান অপরাজিত ছিলেন ৭৮ রানে।

এর আগে প্রথমে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন বরিশাল অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। তামিম ইকবালের ৭৫ রানের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে নির্ধারিত ওভার শেষে স্কোরবোর্ডে তিন উইকেটে ১৬৩ রান তোলে চিটাগং। শেষদিকে, ১৯ বলে ২৭ রানের কার্যকরী ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন আনামুল হক। শেষ বলে আউট হওয়ার আগে ডোয়াইন স্মিথের ব্যাট থেকে আসে ১৭ (১৭ বল)।

ওপেনিং জুটিতেই ১১৬ রান তোলেন তামিম ও জহুরুল ইসলাম। ৫১ বলে ৭৫ রানের ঝড়ো ইনিংস উপহার দেন চিটাগং অধিনায়ক। তাতে ছিল ১০টি চার ও ২টি ছক্কার মার। ১৪তম ওভারের প্রথম বলেই কামরুল ইসলাম রাব্বিকে ডাউন দ্য উইকেটে খেলতে গিয়ে বোল্ড আউট হন তামিম।

পরের ওভারেই জহুরুলকে (৩৬) লং-অনে থিসারা পেরেরার ক্যাচে পরিণত করেন আবু হায়দার। হঠাৎই যেন চিটাগংয়ের ছন্দপতন হয়! তবে আনামুল-স্মিথের ব্যাটে বড় স্কোর গড়া না হলেও লড়াকু সংগ্রহ দাঁড় করায় চিটাগং।

 

চিটাগং একাদশ: তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), জহুরুল ইসলাম, আনামুল হক (উইকেটরক্ষক), নাজমুল হোসেন মিলন, জাকির হোসেন, ডোয়াইন স্মিথ, মোহাম্মদ নবী, ইমরান খান, সুবাশিষ রায়, আব্দুর রাজ্জাক, গ্রান্ট এলিয়ট।

বরিশাল একাদশ: জশ কব, ডেভিড মালান, মুশফিকুর রহিম (অধিনায়ক ও  উইকেটরক্ষক), শাহরিয়ার নাফিস, থিসারা পেরেরা, কামরুল ইসলাম রাব্বি, রায়াদ এমরিত, নাদিফ চৌধুরী, আল আমিন হোসেন, তাইজুল ইসলাম, আবু হায়দার।

এদিকে, সোমবার (১৪ নভেম্বর) রাতের ম্যাচে সাকিবের ঢাকা ডায়নামাইটসের সামনে টানা তিন ম্যাচে জয়হীন মাশরাফির কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। সন্ধ্যা ৭টায় খেলা শুরু হবে। এটি ঢাকা পর্ব-১ এর শেষ ম্যাচ। দু’দিন বিরতির পর ১৭ নভেম্বর ঢাকা-চট্টগ্রাম ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে চট্টগ্রাম পর্ব।

LEAVE A REPLY