ক্রীড়া ডেস্ক

কাইল অ্যাবট ও কাগিসো রাবাদার বোলিংয়ে আরও একবার বেরিয়ে এল অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটিংয়ের কঙ্কাল। চতুর্থ দিন প্রথম সেশনেই গুটিয়ে গেল স্মিথের দল। হোবার্ট টেস্টে ইনিংস ও ৮০ রানের জয়ে এক ম্যাচ বাকি থাকতেই সিরিজ জিতে গেল দক্ষিণ আফ্রিকা।
সকালে দিনের পঞ্চম ওভারে উসমান খাজার আউট দিয়ে শুরু হয়েছিল। শেষ হলো দিনের ২৫তম ওভারের প্রথম বলে লায়নের ওই আউট দিয়ে। প্রথম ইনিংসে ৮৫ রানে অলআউট হওয়ার লজ্জা পুরোনো হওয়ার আগেই দ্বিতীয় ইনিংসে ১৬১ রানে শেষ অস্ট্রেলিয়া। হোবার্ট টেস্টে ইনিংস ও ৮০ রানের জয়ে তাই এক ম্যাচ বাকি থাকতেই তিন ম্যাচের সিরিজও জিতে গেল দক্ষিণ আফ্রিকা। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে এই প্রথম দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস ব্যবধানে জয়।
অস্ট্রেলিয়া দিন শুরু করেছিল ২ উইকেটে ১২১ রান নিয়ে, সেখান থেকে ১৬১ রানেই সব শেষ! ৩২ রানে পড়েছে শেষ ৮ উইকেট, শেষ সাত ব্যাটসম্যান মিলে করেছেন মাত্র ১৯ রান! টেস্টটা যে চতুর্থ দিন সকাল পর্যন্ত গড়িয়েছে, সেটাও তো স্রেফ আবহাওয়ার কারণে। বৃষ্টির কারণে দ্বিতীয় দিনে তো বল হয়নি একটিও।

এই জয়ে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে সিরিজ জয়ের হ্যাটট্রিক করল দক্ষিণ আফ্রিকা। জিতেছিল তারা ২০০৮-০৯ ও ২০১২-১৩ সিরিজেও। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টানা তিনটি সিরিজ জয়ী মাত্র তৃতীয় দলও তারা। ১৯৮৪ থেকে ১৯৯২ সালের মধ্যে টানা তিনটি জিতেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ইংল্যান্ড জিতেছিল সেই ১৮৮৪ থেকে ১৮৮৮ সালের মধ্যে।

অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম ইনিংস ব্যবধানে জয়ও এটিই। অথচ দলটি খেলতে এসেছে তাদের অধিনায়ক ও সেরা ব্যাটসম্যান এবি ডি ভিলিয়ার্সকে ছাড়া। প্রথম টেস্টের মাঝপথে হারিয়েছে সেরা বোলার ডেল স্টেইনকে! স্টেইন ছিটকে না পড়লে যাঁর হয়তো খেলাই হতো না, সেই অ্যাবটই হোবার্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ধসিয়ে দিলেন অস্ট্রেলিয়াকে। দুই ইনিংস মিলিয়ে ৯ উইকেট, এর মধ্যে দ্বিতীয় ইনিংসেই ৬টি। অবধারিতভাবে তিনিই ম্যাচসেরা। বাকি ৪টি উইকেট কাগিসো রাবাদার। বাকি বোলারদের কিছু করার সুযোগই দেননি এই দুজন। কোনো প্রশংসাই হয়ত যথেষ্ট নয় ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক ফাফ দু প্লেসি ও তার দলের জন্য।

LEAVE A REPLY