ক্রীড়া ডেস্ক

হোবার্টে সদ্য সমাপ্ত টেস্টে প্রথম ইনিংসে ৮৫ রানে অলআউট হয় অস্ট্রেলিয়া। দ্বিতীয় ইনিংসে ৩২ রানে শেষ ৮ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ হারে ইনিংস ব্যবধানে। এতেই নিশ্চিত হয় দেশের মাটিতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টানা তৃতীয় সিরিজ হারও।

এটা অস্ট্রেলিয়ার টানা পাঁচ টেস্টে হার। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৩-০-তে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর ঘরের মাঠে দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে দুই টেস্টে বড় হার। ক্রিকেট দলের এমন বিপর্যয়কর অবস্থার দায় নিজের কাঁধে নিয়ে পদত্যাগ করেছেন প্রধান নির্বাচক রডনি মার্শ। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, প্রধান নির্বাচকের পদত্যাগপত্র গৃহীত হয়েছে, এটি কার্যকর হবে তাৎক্ষণিকভাবেই। বুধবারই ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার জরুরি বোর্ড সভার পর জানা যেতে পারে নতুন প্রধান নির্বাচকের নাম।

৬৯ বছর বয়সী মার্শ অবশ্য জানিয়েছেন, কোনো চাপ নয়, নিজের সিদ্ধান্তেই পদত্যাগ করছেন তিনি। দলের টানা ব্যর্থতাতেই তাঁর এই সিদ্ধান্ত, ‘আমি নিজেই পদত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া বা এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কারও চাপে আমার এই সিদ্ধান্ত নয়। তবে স্পষ্ট ভাবেই এখন প্রয়োজন নতুন ও তরতাজা ভাবনা, যেমনটি প্রয়োজন আমাদের টেস্ট দলে নতুন মুখ আনা ও ভবিষ্যতের জন্য গড়ে তোলা।’

হোবার্টের হারের মধ্য দিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথমবারের মতো ঘরের মাঠে সিরিজ হার নিশ্চিত হয়েছে অস্ট্রেলিয়ার। পার্থে প্রথম টেস্টে ১৭৭ রানে হারার পর হোবার্টে নিজেদের আরও তলানিতে নিয়ে গেছে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটাররা। ইনিংস ও ৮০ রানে পরাজয়ের এই ম্যাচে অস্ট্রেলীয় ব্যাটসম্যানরা খেলেছেন মাত্র ৫৫৮টি বল। সূত্র: এএফপি।

LEAVE A REPLY