মানবজাতি শিগগিরই ধ্বংস হয়ে যেতে পারে আগামী এক হাজার বছরও হয়তো আমরা পৃথিবীতে টিকতে পারব না তাই সময়ের মধ্যেই আমাদের পৃথিবীর বাইরে কোনো বাসস্থান খুঁজে নিতে হবে

কথাগুলো ব্রিফ হিস্টোরি অব টাইমখ্যাত তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞানী স্টিফেন হকিংয়ের। চলতি সপ্তাহের শুরুতে যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি ইউনিয়নের এক সমাবেশে তিনি কথা বলেন

স্টিফেন হকিংয়ের আশঙ্কা, আগামী এক হাজার বছরও হয়তো মানুষ পৃথিবীতে থাকতে পারবে না। পৃথিবীতে মানুষের এই টিকে না থাকার কারণ হিসেবে তিনি জলবায়ু পরিবর্তন, পারমাণবিক বোমা এবং রোবটের কথা উল্লেখ করেন

হকিংয়ের মতে, এক হাজার বছরের মধ্যেই পৃথিবীর বাইরের গ্রহগুলোতে বাসস্থান তৈরি করতে পারলে মানুষের বেঁচে যাওয়ার বড় সম্ভাবনা আছে

নিজের বক্তৃতায় স্টিফেন হকিং আরো বলেন, অতি সম্প্রতিই পৃথিবীতে বড় প্রাকৃতিক দুর্যোগের তেমন আশঙ্কা নেই। তবে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আশঙ্কা বাড়বে। আগামী এক হাজার থেকে ১০ হাজার বছরের মধ্যে মানুষের পৃথিবী ছেড়ে যাওয়া নিশ্চিত হবে। হকিং বলেন, ‘এসময়ের মধ্যে মহাকাশে, অন্য নক্ষত্রে ছড়িয়ে যেতে হবে আমাদের। শুধু তাহলেই পৃথিবীতে বড় দুর্যোগ ঘটলেও মানুষ প্রজাতি বেঁচে যাবে।

যুক্তরাজ্যের সংবাদমাধ্যম দি ইনডিপেনডেন্ট জানায়, বক্তৃতায় বিষাদময়তা আশঙ্কার মধ্যে আশার বাণী শুনিয়েছেন স্টিফেন হকিং। তিনি বলেছেন, ‘পায়ের নিচের মাটি নয়, আকাশের তারার কথা মনে রাখতে হবে। আমরা যা দেখি, তার অর্থ খুঁজতে হবে। কীভাবে মহাবিশ্ব টিকে আছে, তা জানতে হবে। আগ্রহ থাকতে হবে। জীবন যত কঠিনই মনে হোক, সব সময়ই কোনো কিছু করার পথ খোলা থাকবে এবং সেখানে সফলতাও আসবে। হাল ছেড়ে না দেওয়াই আসলে পার্থক্য করে দেয়।

সিএনএন জানায়, মহাকাশে মানুষের অভিযান বাড়ছে। যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা সৌরজগতের বাইরের গ্রহগুলোতে মানুষের টেকসই বাসস্থানের সব সম্ভাবনা খতিয়ে দেখছে। আর স্পেস এক্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অ্যালন মাস্ক আগামী শতাব্দীর মধ্যেই মঙ্গল গ্রহে উপনিবেশ গড়ে তোলার নিজের পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন

 

LEAVE A REPLY