আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
কোস্টারিকায় গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ঝড় ওত্তোর আঘাতে অন্তত ৯ জনের প্রাণহানি হয়েছে। ঝড়ের প্রভাবে দেশটির বিভিন্ন অঞ্চলে কয়েক ঘণ্টার মধ্যে রেকর্ড বৃষ্টিপাত হয়েছে।

প্রাকৃতিক দুর্যোগে প্রাণহানির ঘটনায় প্রেসিডেন্ট লুইস গুইলার্মো সোলিস তিন দিনের শোক ঘোষণা করেছেন। এছাড়া প্রায় ৫ হাজার ৫শ’ বাসিন্দাকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

প্রবল বৃষ্টিপাতের ফলে বেশ কয়েকটি শহর কাদাপানিতে তলিয়ে গেছে এবং কয়েকটি ছোট সেতু ধসে পড়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় হারিকেন কেন্দ্র (এনএইচসি) জানায়, বৃহস্পতিবার হারিকেনটি দুই ক্যাটাগরির ঝড়ে রূপ নিয়ে নিকারাগুয়ার দক্ষিণাঞ্চলে আঘাত হেনেছে।

তবে আঘাত হানার পর দ্রুত শক্তি হ্রাস পেয়ে ঝড়টি এখন গ্রীষ্মম-লীয় ঝড়ের পরিণত হয়েছে। ঝড়টি এখন প্রশান্ত মহাসাগরের ওপর দিয়ে অগ্রসর হচ্ছে। ঝড়ের কেন্দ্রস্থলে বাতাসের গতিবেগ ঘন্টায় ১৭৫ মাইল (১১০ কিলোমিটার)।

১৮৫১ সালে কোস্টারিকায় প্রথম হারিকেন আঘাত হানে। এরপর থেকে দেশটিতে সরাসরি কোন হারিকেন আঘাত করেনি।

বাগাসেস ও উপালায় প্রাণহানির ঘটনাগুলো ঘটেছে বলে জানা গেছে। এলাকাগুলো নিকারাগুয়ার দক্ষিণ সীমান্তে অবস্থিত।

ঝড়ের আঘাতে নিকারাগুয়ায় এখন পর্যন্ত হতাহতের কোন খবর পাওয়া যায়নি এবং খুব বেশি ক্ষতি হয়নি।

দুদেশের কর্মকর্তারাই সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলো থেকে মানুষকে অন্যত্র সরিয়ে নিচ্ছে। এছাড়াও স্কুলগুলো বন্ধ রাখা হয়েছে এবং জরুরি কর্মীদের মোতায়েন করা হয়েছে।

পানামায় চলতি সপ্তাহের গোড়ার দিকে ওত্তোর প্রভাবে সৃষ্ট বৈরী আবহাওয়ার কারণে ৪ জন প্রাণ হারিয়েছে।

বৃহস্পতিবার স্থলে আঘাত হানার পরপরই নিকারাগুয়া ও এলসালভাদরে একটি শক্তিশালী ভূমিকম্প হয়। এর প্রেক্ষিতে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ অল্প সময়ের জন্য সুনামি সতর্কতা জারি করেছিল।
সূত্র: বাসস

LEAVE A REPLY