ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া ডিগ্রি কলেজ সরকারিকরণের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি হামলা ও লাঠিপেটায় উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের সহকারি অধ্যাপক আবুল কালামসহ দু’জন নিহতের ঘটনায় মঙ্গলবার টানা দ্বিতীয় দিনের মতো ১৪৪ ধারা বহাল রয়েছে।

ঘটনার পর থেকে পুরো ফুলবাড়িয়া জুড়ে থমথমে অবস্থা ও জনমনে আতংক বিরাজ করছে।

শিক্ষক নিহতের ঘটনায় এখনো মামলা দায়ের হয়নি। তবে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান কলেজ সরকারিকরণ দাবি আদায় কমিটির আহবায়ক আবুল হোসেন।

তার অভিযোগ, পুলিশ শিক্ষক ও শিক্ষার্থীসহ আন্দোলনরতদের হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। গ্রেফতার আতংকে এখন সবাই পালিয়ে বেড়াচ্ছে।

এদিকে শিক্ষা মন্ত্রণালয় গঠিত ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটিসহ জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের পৃথক তদন্ত কমিটি এলাকায় কাজ শুরু করেছে। সকালে শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (কলেজ ও প্রশাসন) প্রফেসর মোহাম্মদ শামছুল হুদার নেত্রত্বে ৩ সদস্যের গঠিত কমিটি ফুলবাড়িয়া কলেজ ও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানার ওসির সঙ্গে কথা বলে কমিটি।

কমিটির প্রধান শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন ও কলেজ) প্রফেসর মোহাম্মদ শামছুল হুদা বলেন, আমরা সরেজমিনে পরিদর্শণ করেছি। ১৪৪ ধারা জারি রয়েছে। একজন শিক্ষক ও ২ জন কর্মচারীর সাথে কথা বলেছি এবং তাদের কথা রেকর্ড করেছি। তবে এটুকুই যথেষ্ঠ নয়। আহত শিক্ষক-শিক্ষার্থী, স্থানীয় প্রশাসনসহ বিভিন্ন সংস্থার মতামত নিয়ে এগোচ্ছি।

এছাড়া জেলা প্রশাসন গঠিত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আরিফুর রহমান ও পুলিশ প্রশাসন গঠিত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নূরে আলমের নেতৃত্বে কমিটির সদস্যরা তদন্ত শুরু করেছেন বলে জানান কমিটির প্রধানগণ।

কলেজ সরকারিকরণ দাবি আদায় কমিটির আহবায়ক আবুল হোসেন জানান, একদিকে পুলিশের মামলায় গ্রেফতার আতংক অন্যদিকে দি¦তীয় দিনের মতো ১৪৪ ধারা জারি থাকায় কেউই কলেজে ঢুকতে পারছেন না।

তিনি ক্ষোভের সঙ্গে জানান, কলেজটি ধ্বংসের পায়তারা চলছে। প্রায় ৫ হাজার শিক্ষার্থীর শিক্ষা জীবন অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। গ্রেফতার আতংকে কোনো শিক্ষক ও শিক্ষার্থীসহ কর্মচারীরা কলেজে যেতে পারছেন না। রোববার থেকে কলেজের উচ্চ মাধ্যমিকের ৭’শ শিক্ষার্থীর টেস্ট পরীক্ষা শুরু হয়েছে। একটি পরীক্ষা দেয়ার পরপরই ১৪৪ ধারা জারি থাকায় কলেজটি পুলিশ পাহাড়ায়।

LEAVE A REPLY