আন্তর্জাতিক ডেস্ক

কখনো চুরুটে বিষ মিশিয়ে, কখনো সাঁতারের পোশাকে জীবাণু ছড়িয়ে কিংবা বিষাক্ত ক্যাপসুল দিয়ে। এভাবে ১৯৫৯ সালে কিউবার বিপ্লবের পর থেকে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ নানাভাবে তাঁকে হত্যার চেষ্টা করেছে। তবে প্রতিবারই তিনি বেঁচে গেছেন। সেই মহান বিপ্লবী ফিদেল কাস্ত্রো শেষ পর্যন্ত মৃত্যুর কাছে ধরা দিলেন। তবে মৃত্যুর কারণ এখনো জানানো হয়নি। তা যেন রাষ্ট্রীয় গোপন বিষয়।

১৯৭৫ সালে প্রকাশিত যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটের চার্চ কমিটির এবং সিআইএর নথিতে দেখা যায়, কাস্ত্রোকে হত্যার জন্য নানা পরিকল্পনা করা হয়। এর কিছু প্রয়োগ করা হয় এবং বাকিগুলো পরিকল্পনাতেই সীমাবদ্ধ ছিল।
দারুণ বক্তা হিসেবে সুখ্যাতি ছিল কাস্ত্রোর। ১৯৬০ সালের মাঝামাঝিতে সিআইএ পরিকল্পনা করে, বক্তব্যের সময় কাস্ত্রোর আচরণে গোলমাল বাধিয়ে তাঁর ভাবমূর্তি নষ্ট করবে। ভাষণ দেওয়ার স্টুডিওতে রাসায়নিক স্প্রে করে কাস্ত্রোকে অদ্ভুত আচরণ ও মাতলামি করানোর পরিকল্পনা ছিল সিআইএর। তাঁকে দুর্বল করতে জুতার মধ্যে রাসায়নিক দ্রব্য রাখার পরিকল্পনাও হয়।
কমপক্ষে আটবার চুরুটে বিষ মিশিয়ে কাস্ত্রোকে হত্যার চেষ্টা করে সিআইএ। ১৯৬০ সালে সন্ত্রাসী দল ভাড়া করেছিল সিআইএ। কাস্ত্রোকে হত্যা করতে পারলে তাদের দেড় লাখ ডলার দেওয়ার প্রলোভনও দেওয়া হয়েছিল। পরবর্তী সময়ে সিদ্ধান্ত হয়, কাস্ত্রোকে খাবারে বিষ মিশিয়ে হত্যা করা হবে। সাঁতারের পোশাকে জীবাণু ছাড়িয়ে হত্যার পরিকল্পনাও হয়। তবে প্রত্যেকবারই কোন না কোনভাবে বেঁচে গেছেন।

ফিদেল কাস্ত্রো জানিয়ে গেছেন, যুক্তরাষ্ট্র তাঁকে কমপক্ষে ৬০০ বার হত্যার চেষ্টা করেছে।

LEAVE A REPLY