বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির তথ্য ফিলিপাইন কর্তৃপক্ষকে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। চুরি যাওয়া অর্থ উদ্ধার প্রক্রিয়া দ্রুততর করার জন্যই ওই তথ্য ফিলিপাইনকে দেওয়া হবে বলে ব্রিটিশ বার্তাসংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে।

চলতি বছরের ৫ ফেব্রুয়ারি নিউ ইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি হয়। প্রায় ১ বিলিয়ন ডলার চুরির চেষ্টা করা হলেও শেষ পর্যন্ত হ্যাকাররা ৮১ মিলিয়ন ডলার ফিলিপাইনে স্থানান্তরে সক্ষম হয়। ওই অর্থ ফিলিপাইনের আরসিবিসি ব্যাংকের জুপিটার ব্রাঞ্চের চারটি অ্যাকাউন্টে স্থানান্তর করা হয়। পরে ওই অর্থ যায় দেশটির একাধিক ক্যাসিনোতে।

ফিলিপাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী কার্লোস ডোমিঙ্গেজ গত সপ্তাহে ফিলিপাইন সফররত বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তদন্তের তথ্য তাদের কাছে দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছিলেন। ওই প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

এর আগে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে রিজার্ভ চুরির তদন্তের তথ্য ফিলিপাইনকে দেওয়া হবে না বলা হলেও, আইনমন্ত্রী জানান, ‘এটি সহযোগিতার অংশ। আমরা তদন্তের একটি হালনাগাদ প্রতিবেদন তাদের দেবো।’

গত সপ্তাহে তিনি বলেছেন, ফিলিপাইনের রিজাল ব্যাংককে ওই রিজার্ভ চুরির দায়ভার গ্রহণ করতে হবে। তিনি আরও জানান, বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে রিজাল ব্যাংককে সতর্ক বার্তা পাঠানোর পরেও তারা ওই চুরির অর্থ ব্যাংক থেকে বের করার সুযোগ দিয়েছে।

আরসিবিসি-কে ফিলিপাইনের কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে রেকর্ড এক বিলিয়ন পেসো (ফিলিপাইনের মুদ্রা) বা দুই কোটি ডলার জরিমানা করা হয়েছে।

আনিসুল এ প্রসঙ্গে বলেন, তারা যে দোষ করেছে, তার শাস্তি হিসেবেই ওই জরিমানা করা হয়েছে।

গত মাসে ফিলিপাইনের মুদ্রাপাচার-বিরোধী সংস্থা আরসিবিসি পাঁচ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ওই অর্থচুরির সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগপত্র দায়ের করেছে।

তবে বাংলাদেশ পুলিশ, ফিলিপাইন কর্তৃপক্ষ, ইন্টারপোল বা মার্কিন কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (এফবিআই)-এর তদন্তে এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি।

এর আগে ফিলিপাইনের পক্ষ থেকে তদন্তের তথ্য তাদের দেওয়ার দাবি জানানো হলে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেছিলেন, ‘রিজার্ভ চুরির পর গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়। এটা কাউকেই দেওয়া হবে না।’

ফিলিপাইন সফর শেষে ঢাকায় ফিরে রবিবার দুপুরে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি। এসময় তারা অর্থমন্ত্রীকে সফরের নানা বিষয় অবহিত করেন।

LEAVE A REPLY