মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্পের পক্ষে কাজ করেছিল রাশিয়া। ট্রাম্পকে জয়ী করাই ছিল রাশিয়ার লক্ষ্য। এ কারণে রাশিয়া বারবার নির্বাচনের ব্যাপারে নাক গলিয়েছে। মার্কিন কেন্দ্রীয় সংস্থার (সিআইএ) গোপন প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে ওয়াশিংটন পোস্টে গতকাল শুক্রবার এ খবর প্রকাশ করা হয়েছে।

এএফপির খবরে জানানো হয়, ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কয়েকজন মার্কিন কর্মকর্তার সঙ্গে মস্কোর যোগসাজশ ছিল। তাঁরা উইকিলিকসকে বিভিন্ন তথ্য সরবরাহ করতেন। ডেমোক্রেটিক প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের নির্বাচনী প্রচার প্রধান এবং অন্যদের ইমেইল হ্যাকের সঙ্গেও তাঁরা জড়িত ছিলেন।

নির্বাচনের কয়েক মাস আগে এসব ইমেইল উইকিলিকসের মাধ্যমে ফাঁস হয়। এতে হিলারি ক্লিনটনের নির্বাচনী প্রচার ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

বুধবার টাইম ম্যাগাজিনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এসব তথ্যকে অস্বীকার করেন। ট্রাম্পের মধ্যবর্তী দল (ট্রানজিশন‍) বলছে, ইরাকের সাবেক প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেনের কাছে গণবিধ্বংসী অস্ত্র রয়েছে—এমন তথ্য যারা দিয়েছিল, তারাই এসব তথ্য দিচ্ছে। নির্বাচন অনেক দিন আগেই শেষ হয়েছে। এটি ছিল ঐতিহাসিক নির্বাচন। এখন সামনের দিকে এগোনোর সময়। যুক্তরাষ্ট্রকে আবার সেরা করে তোলার সময়।

নির্বাচনকালীন সাইবার হামলাকারীদের নিয়ে তদন্তের নির্দেশ দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। নির্বাচনী প্রচারে রাশিয়ার ভূমিকা নিয়ে আরও তথ্য দিতে কংগ্রেসের পক্ষ থেকে বারবার দাবি জানানো হয়। এর প্রেক্ষিতেই ওবামা এই নির্দেশ দেন। এরপরই ওয়াশিংটন পোস্টের এই প্রতিবেদন এল।

বর্তমান প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা তাঁর মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই এ ব্যাপারে পুরোপুরি তথ্য চেয়েছেন।

LEAVE A REPLY