বগুড়ার ঐতিহাসিক মহাস্থানগড়ের চারিদিকে এখন সাজসাজ রব। এক বছরের জন্য মহাস্থানগড় হয়েছে সার্কের সাংস্কৃতিক রাজধানী। প্রায় আড়াই হাজার বছরের গৌরবোজ্জ্বল সভ্যতার নিদর্শন মহাস্থানগড়কে কেন্দ্র করে সার্কের সাংস্কৃতিক রাজধানীর বছরব্যাপী অনুষ্ঠানমালা শুরু হবে আগামী ২১ জানুয়ারি।

আগে এটি ছিল প্রাচীন বাংলার রাজধানী। যা পুন্ড্রুনগরী নামে পরিচিত ছিল। কালের গর্ভে হারিয়ে যেতে বসা সেই দর্শনীয় স্থানটি এখন সেজেছে নতুন রূপে। জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি বিষয়ক সংস্থার (ইউনেসকো) সহযোগিতায় বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করা হচ্ছে মহাস্থানগড় এলাকা জুড়ে।

সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর সার্ক সাংস্কৃতিক রাজধানী প্রসঙ্গে বলেন, নতুন বছরের শুরুতেই এই আয়োজন শুরু হচ্ছে। এই আয়োজনের মধ্য দিয়ে আমরা আমাদের হাজার বছরের অসাম্প্রদায়িক সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য তুলে ধরব।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রত্নতত্ত্ব অধিদফতরের রাজশাহী বিভাগীয় পরিচালক নাহিদ সুলতানা বলেন, এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের (এডিবি) অর্থায়নে এই কাজটি আলাদা একটি ইউনিটের মাধ্যমে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় তদারকি করছে। পুরো মহাস্থানগড় এলাকার প্রাচীন নকশা ও এর আধুনিক অলংকরণ মিলিয়ে কাজটি চলছে। চলতি মাসের মধ্যেই কাজ শেষ হলে এগুলো সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় থেকে প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের কাছে হন্তান্তর করা হবে। আগামী মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঐতিহাসিক এই স্থানে এসে সার্ক সাংস্কৃতিক রাজধানীর অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধন করবেন।

তিনি আরও বলেন, বর্তমান মহাস্থানগড় পেয়েছে একটি নতুন চেহারা, যা দেখে পর্যটকরা আকৃষ্ট হবেন।

LEAVE A REPLY