বর্ধিত হোল্ডিং ট্যাক্স বাতিলসহ চার দফা দাবিতে রাজশাহী নগরীতে পালিত হচ্ছে আর্ধ দিবস হরতাল। রোববার সকাল ৬টা থেকে শুরু হয়েছে এ হরতাল। চলবে দুপুর ১২টা পর্যন্ত।

নাগরিক অধিকার সংরক্ষণ সংগ্রাম পরিষদের আহ্বানে এ হরতাল পালিত হচ্ছে। গত ৬ ডিসেম্বর হরতালের ডাক দেয় সংগঠনটি। পরে আরো ৮টি নাগরিক ও সামাজিক সংগঠন এসে সমর্থন দেয়।

এদিকে, হরতালে নগরীর অধিকাংশ দোকান-পাট বন্ধ রয়েছে। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে খুলতে শুরু করেছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো। হরতালেও সবধরনের হাল্কা যানবাহন চলাচল রয়েছে প্রায় স্বাভাবিক। নগরীর নিরাপত্তায় সতর্ক রয়েছে আইন-শৃংখলা বাহিনী। সকাল ১০টা পর্যন্ত এনিয়ে কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে নাগরিক অধিকার সংরক্ষণ সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক অ্যাড. এনামুল হক বলেন, নগরবাসীর আয়ের সঙ্গে সঙ্গতি না রেখেই সিটি করপোরেশন হোল্ডিং ট্যাক্স বাড়িয়েছে। এটি অস্বাভাবিক এবং তা প্রত্যাহারে দীর্ঘদিন ধরেই আন্দোলন চলছে। কিন্তু নগরবাসীর কাছ থেকে একতরফাভাবে বর্ধিত হোল্ডিং আদায়ে অনড় সিটি করপোরেশন। ফলে বাধ্য হয়ে হরতালসহ কঠোর আন্দোলনে নেমেছেন তারা।

তিনি আরো বলেন, আমরা আদালতেরও শরণাপন্ন হয়েছি। এরইমধ্যে হাইকোর্ট বর্ধিত হোল্ডিং ট্যাক্স ‘কেন বাতিল করা হবে না’ জানতে চেয়ে সিটি করপোরেশনের বিরুদ্ধে দুই সপ্তাহের রুল জারি করেছেন, যা আন্দোলনের শক্তি বাড়িয়েছে।

এনামুল হক বলেন, হরতালের সমর্থনে শনিবার নগরীর মোড়ে মোড়ে লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে। নগরীর বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে এ হরতালে সমর্থন জানিয়েছে। হরতালের আওতামুক্ত রাখা হয়েছে অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার ব্রিগেডের গাড়ি ও ওষুধের দোকান। নগরবাসীকে শান্তিপূর্ণ হরতাল পালনের আহ্বান জানান তিনি।

LEAVE A REPLY