নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে আবারও সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবি জানিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খানের পক্ষে গণসংযোগকালে তিনি এই দাবি জানান।

পরে সিটি কর্পোরেশনের ১নং ওয়ার্ডের সিদ্ধিরগঞ্জের হিরাঝিলস্থ প্রেসক্লাব এলাকায় এক পথসভায় রিজভী বলেন, যে জগদ্দল পাথর বাংলাদেশের মানুষের ওপর পাথরের মতো চেপে বসেছে। সেই পাথর কিছুটা সরানোর জন্য হলেও গণতন্ত্রের পথে হাঁটার জন্য হলেও সাখাওয়াত হোসেন খানকে ভোট দিতে হবে। আর সাখাওয়াত হোসেনকে ভোট দিতে হবে এই কারণে যে, আজ মানুষের কোনো অধিকার নেই।

গণতন্ত্র লোহার সিন্ধুকের মধ্যে বন্দী করে রাখা হয়েছে উল্লেখ করে রিজভী বলেন, জাতীয় নির্বাচনে চতুষ্পদ জন্তু ছাড়া কাউকে ভোট কেন্দ্রে দেখা যায়নি। উপজেলা নির্বাচনে প্রথম দুই দফা কিছুটা কাটাকাটি হানাহানি কম হয়েছে। যখন দেখলো বিএনপি জিতে যাচ্ছে, স্বাভাবিক নির্বাচন হলে বিএনপি বিজয়ী হবে, তখন শুরু করা হল ব্যালট বাক্স ছিনতাই।

এরপর রাত ৩টায় সিল মেরে ব্যালট বাক্স ভর্তি, ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে যেতে না দেয়া। তারপর শুরু করা হল বিএনপির প্রার্থীদের ভোট কেন্দ্রে যেতে না দেয়া। প্রশাসনের কিছু লোক বাধা দেয়ার চেষ্টা যখন করেছেন তখন তাদের ওপর হামলা করা হয়েছে। মুন্সিগঞ্জে ইউএনও এবং পুলিশের ওপর হামলা করা হয়েছে।

উপজেলা, পৌরসভা ও ইউপি নির্বাচন হয়েছে রক্তমাখা নির্বাচন। লাশের নির্বাচন। এই নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে যায়নি। তারা ভোট ছিনতাই করে নিয়ে গেছে। মানুষের অধিকার ছিনতাই করে নিয়ে গেছে। ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের এতো সম্পর্ক, এতো বন্ধুত্ব প্রতিদিন বিএসএফ গুলি করে সীমান্তে মানুষ মারছে। এতে সরকার কোনো প্রতিবাদ করছে না।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদীন ফারুকের সভাপতিত্বে পথসভায় আরো বক্তব্য রাখেন, বিএনপির আইন বিষয় সম্পাদক অ্যাড. সানাউল্লাহ মিয়া, নির্বাচনের সিদ্ধিরগঞ্জ থানার প্রধান সমন্বয়ক বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাড. আব্দুস সালাম আজাদ, সাবেক সংসদ সদস্য শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, শাম্মী আক্তার শাম্মী, ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আমীরুল ইসলাম খান আলীম, বিএনপি নেতা মনিরুল ইসলাম রবি প্রমুখ।

LEAVE A REPLY