বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে বাংলায় ডাব করা সিরিয়াল ও অনুষ্ঠান প্রচার বন্ধে এবার প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়েছে টিভিনাটক শিল্পী ও কলাকুশলীদের সংগঠন ফেডারেশন অব টেলিভিশন প্রফেশনালস অর্গানাইজেশন (এফটিপিও)।
এগারো দফা দাবিতে আন্দোলনরত এফটিপিও মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে একুশে টিভি কার্যালয়ের নিচে অবস্থান কর্মসূচি পালন করে।

সেখান থেকে বিদেশি ভাষার সিরিয়াল ও অনুষ্ঠানগুলো প্রচারের মাধ্যমে টিভি চ্যানেলগুলো দেশের কৃষ্টি-কালচার ও বাঙালি হাজারো বছরের ঐতিহ্য ‘ধ্বংসের পায়তারা’ করছে বলে অভিযোগও আসে।

এফটিপিওর সদস্য সচিব নির্মাতা গাজী রাকায়েত ২০০৬ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর প্রণীত সম্প্রচার নীতিমালার ১৯ নম্বর ধারা উল্লেখ করে বলেন, “এখানে বলা হয়েছে- নগ্নতা, অশ্লীলতা, যৌনতা বা অশালীন ইঙ্গিতবাহী কোনো অনুষ্ঠান টিভিতে প্রচার করা যাবে না। কিন্তু বিদেশি সিরিয়ালে হচ্ছেটা কী?”

তার অভিযোগ, বাংলায় ডাবিং করা সিরিয়ালগুলো প্রচারের আগে চ্যানেল কর্তৃপক্ষ কোনোভাবেই তথ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন নেয়নি। তিনি এসব কার্যক্রমকে ‘অবৈধ ও বেআইনি’ হিসেবেও উল্লেখ করেন।

অভিনেতা ও নির্মাতা নাদের চৌধুরী বলেন, “চ্যানেলের এসব বেআইনি কার্যকলাপে আমাদের কৃষ্টি, সভ্যতা ও সংস্কৃতি ধ্বংস হচ্ছে। ধ্বংস হচ্ছে শিল্প আর শিল্পী। প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের অনুরোধ, শিল্প বাঁচাতে আপনি তড়িৎ ব্যবস্থা গ্রহণ করুন।”

অবস্থান কর্মসূচিতে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন অভিনেতা শহীদুজ্জামান সেলিম, নাট্যকার সংঘের সভাপতি মাসুম রেজা,

এফটিপিওর আহ্বায়ক অভিনেতা-নির্দেশক মামুনুর রশীদ, অভিনেতা মাহফুজ আহমেদ, ডিরেক্টরস গিল্ডের সাধারণ সম্পাদক এস এ হক অলিক প্রমুখ।

২৮ ডিসেম্বর এসএটিভি এবং ২৯ ডিসেম্বর মাছরাঙা টিভির কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশের কর্মসূচি রয়েছে সংগঠনটির

LEAVE A REPLY