নেলসন বলেই প্রেরণা পাচ্ছি : হাথুরুসিংহ

সুখস্মৃতি হাতড়েই সিরিজে ফেরার পরিকল্পনা করছে বাংলাদেশ। নেলসনের স্যাক্সটন ওভালে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ৪ উইকেটে ৩২২ করে সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জেতার রেকর্ড গড়েছিল বাংলাদেশ।

হাথুরুসিংহে গত বিশ্বকাপের সেই ম্যাচটিকেই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচের প্রেরণা ভাবছেন, ‘ইতিহাস বলছে এই মাঠে আমরা ভালো খেলেছি। ব্যাপারটা দারুণ উৎসাহব্যঞ্জক, খুব বেশি দিন আগের ঘটনাও নয়। এই দলের বেশির ভাগ খেলোয়াড়ই ওই ম্যাচটায় ছিল। এটা তো তাদের জন্য দারুণ একটা স্মৃতিই।’

এমন একটা ম্যাচে মুশফিককে হারিয়ে ফেলা খুব বড় ধাক্কাই। ব্যাপারটি স্বীকার করলেন বাংলাদেশ কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। একই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটের কারণে নেলসনের শেষ দুই ওয়ানডেতেই দর্শক হয়ে থাকবেন বাংলাদেশের অন্যতম সেরা এই ব্যাটসম্যান। হাথুরুর শঙ্কা, টি-টোয়েন্টির তিনটি ম্যাচ, এমনকি প্রথম টেস্টেও মাঠের বাইরে থাকতে হতে পারে মুশফিককে।

এ ধরনের হ্যামস্ট্রিং চোট থেকে সেরে উঠতে সাধারণত দুই সপ্তাহের মতো লাগে। হাথুরু তাই আপাতত মুশফিককে নিয়ে কোনো আশাই দেখছেন না, ‘আমাদের অবশ্যই সপ্তাহ দু-এক অপেক্ষায় থাকতে হবে। এর আগে মুশফিকের চোট সেরে গেলে সেটি হবে বাড়তি পাওয়া।’

নেলসনের দ্বিতীয় ওয়ানডের আগে মুশফিককে হারিয়ে ফেলার আক্ষেপ থাকলেও ব্যাপারটিকে খেলার অংশই মনে করেন বাংলাদেশের শ্রীলঙ্কান কোচ, ‘মুশফিক দীর্ঘ দিন ধরেই তিন সংস্করণেই আমাদের দলের অন্যতম সেরা পারফর্মার—ব্যাটসম্যান হিসেবে তো বটেই, উইকেটকিপার হিসেবেও। তাঁকে হারানোটা অবশ্যই বড় এক ধাক্কা। তবে খেলোয়াড়দের চোট খেলার অবিচ্ছেদ্য অংশই।’

ক্রাইস্টচার্চের প্রথম ম্যাচটি ৭৭ রানে হেরে গেলেও ব্যাটিং নিয়ে সন্তুষ্টি আছে হাথুরুর, ‘যদিও আমরা ব্যাটিংয়ের সেময় প্রথম ম্যাচে খুব দ্রুত দুটি উইকেট হারিয়েছি। কিন্তু ২৭০-এর কাছাকাছি রান আমাদের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিয়েছে। যদিও ম্যাচটা হেরেছি। কিন্তু এই ম্যাচে পাওয়া আত্মবিশ্বাস নিয়েই নেলসনে মাঠে নামছি আমরা।’

LEAVE A REPLY