নিগমের হাতে পাইকারি মদ ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ

নিগমের হাতে পাইকারি মদ ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: রাজ্য আবগারি প্রশাসনে বড় ধরনের পরিবর্তন ঘটাল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। ভেঙে দেওয়া হল আবগারি ডিরেক্টরেট। তার পরিবর্তে তৈরি করা হল নতুন একটি আবগারি নিগম। এবং এই ভাঙাগড়ার মধ্য দিয়ে দিশি-বিলিতি সব ধরনের মদের পাইকারি বিক্রির নিয়ন্ত্রণ হাতে নিল সরকার। এতে মদের ব্যবসা থেকে বাড়তি বেশ কয়েক কোটি টাকা সরকারের ভাঁড়ারে আসবে বলে নবান্নের আশা।

কী ভাবে কাজ করবে নয়া নিগম?

নবান্নের খবর, পরিবর্তিত ব্যবস্থায় রাজ্যের যাবতীয় মদের একমাত্র পাইকারি বিক্রেতা হিসেবে কাজ করবে আবগারি নিগমই। অর্থাৎ বিদেশ থেকে আমদানি করা মদ, এ দেশে তৈরি বিলিতি মদ, দিশি মদ ও বিয়ার-সহ সব ধরনের মদই উৎপাদকদের কাছ থেকে কিনে নেবে নবগঠিত সংস্থা। এবং তারাই খুচরো বিক্রেতাদের কাছে সরাসরি তা পৌঁছে দেবে। ফলে এ রাজ্যে মদ ব্যবসার যাবতীয় কর্মকাণ্ডের মূল নিয়ন্ত্রণ থাকবে আবগারি নিগমের হাতেই। এর আগে দফতর পুর্নগঠনের সময় আবগারি দফতরকে অর্থ দফতরের সঙ্গে মিশিয়ে দেওয়া হয়েছিল। আবগারি নিগম এখন কাজ করবে অর্থ দফতরের অধীনেই।

দেশে এমন বন্দোবস্ত পশ্চিমবঙ্গেই যে প্রথম চালু হচ্ছে, তা নয়। অর্থ দফতরের এক কর্তা শুক্রবার জানান, কেরলে এই ব্যবস্থা চলে আসছে ১৯৮৩ সাল থেকে। কর্নাটক, তামিলনাডু, তেলঙ্গনা, অন্ধ্রপ্রদেশ, ওড়িশাতেও সব ধরনের মদের পাইকারি কেনাবেচা হয়ে থাকে সরকারি নিগমের মাধ্যমে। এতে মদ বিক্রির উপরে সরকারের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ থাকায় মদের গুণগত মান, নকল ঠেকানো, কর ফাঁকি ঠেকানো সম্ভব হবে বলে মনে করছেন অর্থ দফতরের কর্তারা। তাঁদের মতে, ‘‘নতুন ব্যবস্থায় এ বার সব মদই কিনতে হবে সরকারের ঘর থেকে। কোনও দোকানের মদে সরকারি ছাপ না-থাকলে তাদের জরিমানা দিতে হবে।’’

এই পরিবর্তনে আর্থিক দিক থেকে কতটা লাভবান হবে রাজ্য?

সরকারি সূত্রের হিসেব অনুযায়ী নতুন ব্যবস্থায় মদ বিক্রি করে বছরে বাড়তি অন্তত ১৫০-২০০ কোটি টাকা আবগারি রাজস্ব আদায় হতে পারে। ক্রমশ ওই রাজস্ব আদায়ের পরিমাণ বাড়বে বলেই জানাচ্ছেন আবগারি কর্তারা। এ বছর আবগারি শুল্ক বাবদ ৪৮০০ কোটি টাকা আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ধার্য হয়েছে। নভেম্বর পর্যন্ত আবগারি খাতে রাজ্যের আয় হয়েছে ৩১০০ কোটি টাকা। চার মাসে লক্ষ্যমাত্রা পূরণের জন্য নতুন নীতি কাজে আসবে বলেই মনে করছেন অর্থ-কর্তারা। আবগারি দফতরের হিসেব, রাজ্যে রোজ গড়ে এক কোটি ২০ লক্ষ লিটার দেশি মদ, এক কোটি ১৫ লক্ষ লিটার বিলিতি মদ এবং

প্রায় ৬০ লক্ষ বিয়ারের বোতল বিক্রি হয়। এ বার সব ধরনের মদই নিগমের কাছ থেকে কিনতে বাধ্য থাকবেন খুচরো বিক্রেতারা।

তবে আবগারি দফতরের একটি অংশের আশঙ্কা, আবগারি নিগম গড়ায় মদ বিক্রিতে মধ্যস্বত্বভোগীদের আর কোনও ভূমিকাই থাকছে না। ফলে সরকারের এই উদ্যোগ ঠেকাতে মদ বিক্রেতাদের একাংশ মামলা-মকদ্দমার পথে যেতে পারেন।
সূত্র: আনন্দবাজার

LEAVE A REPLY