‘বাণিজ্য মেলা ২০১৭’ শুভ উদ্বোধন

ফাইল ফটো

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ (১ জানুয়ারি) মাসব্যাপী ২২ তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার উদ্বোধন করেছেন। একই অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ২০১৩-১৪ অর্থবছরের জাতীয় রফতানি ট্রফি ও সনদ প্রদান করেন।

এ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আজ সকালে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বাংলাদেশ রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) এবং বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

এ বছর ২১টি দেশ (বাংলাদেশসহ) মেলায় অংশ নিচ্ছে। বাংলাদেশ ছাড়া যে সকল দেশের প্রতিষ্ঠানসমূহ মেলায় অংশগ্রহণ করছে সেগুলো হলো- ভারত, পাকিস্তান, চীন, মালয়েশিয়া, ইরান, থাইল্যান্ড, যুক্তরাষ্ট্র, তুরস্ক, সিঙ্গাপুর, অস্ট্রেলিয়া, ব্রিটেন, দক্ষিণ কোরিয়া, মরিশাস, নেপাল, হংকং, জাপান, ভূটান, বাহরাইন, ভিয়েতনাম এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত।

২০১৩-১৪ অর্থবছরে পণ্যখাতে সর্বোচ্চ রফতানি আয়ের জন্য ‘জাবের অ্যান্ড জুবায়ের ফ্রেব্রিক্সকে জাতীয় স্বর্ণ ট্রফি প্রধান করা হয়।

প্রতিষ্ঠানের পক্ষে ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ এস এম রফিকুল ইসলাম নোমান প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে ট্রফি গ্রহণ করেন।

আজ মোট ৬৬টি প্রতিষ্ঠানকে ২০১৩- ১৪ অর্থবছরের জন্য জাতীয় রফতানি ট্রফি ও সনদ প্রদান করা হয়।

২০১৩-১৪ অর্থবছরের জন্য পণ্য ও সেবাখাতে ২৯টি প্রতিষ্ঠানকে স্বর্ণ, ২২টি প্রতিষ্ঠানকে রৌপ্য এবং পণ্যখাতে ১৫টি প্রতিষ্ঠানকে ব্রোঞ্জ ট্রফি প্রদান করা হয়।

উদ্বোধনী বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী রফতানিযোগ্য পণ্য উৎপাদনের ক্ষেত্রে সঠিক মান নিশ্চিতের আহ্বান জানিয়ে বলেন, শুধু জিএসপি সুবিধার পিছনে না দৌড়ে, বিকল্প বাজার সৃষ্টি করতে হবে।

তিনি বলেন, এর মধ্যদিয়ে দেশ মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হবে। চীন, জাপানসহ কয়েকটি দেশে কয়েকটি পণ্যে শুল্ক মুক্ত সুবিধা দেওয়া হয়েছে। আগামীতে সব দেশে শুল্কমুক্ত পণ্য রফতানি সুবিধা পেতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, দেশ বিশ্ব অর্থনীতিতে এগিয়ে যাচ্ছে, ডব্লিউটিও থেকে আমরা শুল্কমুক্ত বাণিজ্য সুবিধা পেতে যাচ্ছি। তবে অন্তর্জাতিক বাজারে নিজেদের পণ্যের চাহিদা বাড়াতে উৎপাদনের সময় পণ্যের গুণগত মান নিশ্চিত করতে হবে।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী চামড়া ও পাদুকাসহ চামড়াজাত পণ্যকে ২০১৭ সালের জন্য ‘প্রোডাক্ট অফ দ্য ইয়ার’ হিসেবেও ঘোষণা করেন।

তিনি বলেন, ‘চামড়া খাতে রফতানি প্রায় ৭১ গুন বৃদ্ধি পেয়েছে। গত অর্থ বছরে এ খাতে ১ হাজার ১৬০.৯৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার রফতানি আয় হয়েছে। বাংলাদেশে এখন বিশ্বমানের চামড়াজাত পণ্য তৈরি হচ্ছে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. তাজুল ইসলাম চৌধুরী এবং বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুন।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন ইপিবি’র ভাইস চেয়ারম্যান মাফরুহা সুলতানা।

LEAVE A REPLY