ধর্ম, বর্ণ, জাতি, সম্প্রদায় অথবা ভাষার নামে ভোট চাওয়া নিষিদ্ধ -ভারতীয় সুপ্রিম কোর্ট

ধর্ম বা ভাষার নামে ভোট চাওয়া যাবে না বলে রায় দিয়েছেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। সোমবার (২ জানুয়ারি) ধর্ম, বর্ণ, জাতি, সম্প্রদায় অথবা ভাষার নামে ভোট চাওয়া নিষিদ্ধ ঘোষণা করে এই রায় দেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট।

দেশটির প্রধান বিচারপতি টি এস ঠাকুরের নেতৃত্বাধীন সাত বিচারপতির বেঞ্চ এ রায় দেন। আদালত এই রায়ে উল্লেখ করেন নির্বাচন একটি ধর্মনিরপেক্ষ বিষয়। তাই জাত-পাত, ধর্ম-বর্ণের নামে ভোট চাওয়া যাবে না।

এই রায়ে ভারতের প্রধান বিচারপতি টি এস ঠাকুর বলেন, সংবিধানের ধর্মনিরপেক্ষ তত্ত্ব অনুযায়ী নির্বাচনে ধর্মনিরপেক্ষতার চর্চা বাধ্যতামূলক। আগামীকাল মঙ্গলবার অবসরে যাওয়ার আগে দেওয়া এই রায়ে ভারতের প্রধান বিচারপতি উল্লেখ করেন ‘মানুষ এবং স্রষ্টার মধ্যে সম্পর্ক নির্ধারণ একটি ব্যক্তিগত বিষয়। এর সঙ্গে রাষ্ট্র ও নির্বাচনব্যবস্থার কোনো সম্পর্ক নেই।’

রাষ্ট্রের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী একজন জনপ্রতিনিধিকে ধর্মনিরপেক্ষ হতে হবে। নির্বাচন প্রক্রিয়ায় ধর্মের কোনো ভূমিকা নেই, এটা পুরোপুরি ধর্মনিরপেক্ষ কাজ। রাজ্য এবং ধর্মকে মেলানো সাংবিধানিকভাবে অনুমোদনযোগ্য নয় বলে রায়ে উল্লেখ করা হয়। সাত বিচারপতির মধ্যে তিনজন এই রায়ে ভিন্নমত পোষণ করে বলেন, এই রায় গণতান্ত্রিক অধিকার ক্ষুণ্ণ করবে।

এমন একটি সময়ে সুপ্রিম কোর্ট এই রায় দিলেন, যখন সম্প্রতি ভারতের গুরুত্বপূর্ণ পাঁচ রাজ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা রয়েছে। আর এই রাজ্যগুলোর নির্বাচনে ধর্মবিশ্বাস এবং বর্ণপ্রথা একটি প্রধান সমস্যা। বিশেষ করে উত্তরপ্রদেশের ভোটের রাজনীতিতে অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ এবং পাঞ্জাবের রাজনীতিতে শিখ ও হিন্দু বিরোধ গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে বলে ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া তাদের খবরে জানায়।

LEAVE A REPLY