মুমিনুলের গড় ২২০

Bangladesh's Mominul Haque plays a shot during day one of the first Test cricket match match between New Zealand and Bangladesh at the Basin Reserve in Wellington on January 12, 2017. / AFP / Marty Melville (Photo credit should read MARTY MELVILLE/AFP/Getty Images)

ছোটখাট গড়নের মানুষটি খুব ধীরে উইকেটের দিকে হেঁটে আসবেন বোলাররা তার উচ্চতার সমান বাউন্সার ছুঁড়বেন কিন্তু তিনি পরোয়া করবেন না! শুরুতে একটু দেখেশুনে যেই না উইকেটটা বোঝা হয়ে গেল; যেনো রেসের তেজি ঘোড়া তিনি গতিবাউন্স, সুইংটার্ন কিছুকেই পাত্তা দেবেন না সময়ের সঙ্গে হাত খুলতে থাকবে, আসতে থাকবে ঝটপট কিছু রান সেটা টেস্ট ক্রিকেট হলেও! সেই রান তোলায় সৌন্দর্য থাকবে, থাকবে ক্রিকেটপ্রেমীদের ভেসে যাওয়ার মত রোমাঞ্চ আর রোমাঞ্চের ভেলায় ভাসানো ব্যাটসম্যানটির নাম মুমিনুল হক নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টে বৃহস্পতিবার অসাধারণ এক ফিফটি তুলে অপরাজিত আছেন সেইসঙ্গে এই প্রিয় প্রতিপক্ষের বিপক্ষে নিজের ব্যাটিং গড়টাকে টেনে নিয়েছেন অবিশ্বাস্য ২২০!

বৃহস্পতিবার ওয়েলিংটনের বেসিন রিজার্ভে ব্যাটিংয়ে নামার আগে কিউইদের বিপক্ষে অনেকগুলো সুখস্মৃতি ছিল মুমিনুলের। টেস্টে ক্যারিয়ার সেরা ১৮১ রানের ইনিংসটি যে এই প্রতিপক্ষের বিপক্ষেই খেলা। ২০১৩ সালে চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম ইনিংসে ২৭ চারে ২৭৪ বলে ৩৭৭ মিনিটের অসাধারণ ইনিংসটি খেলেছিলেন তিনি।

ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসটিকে ডাবল সেঞ্চুরিতে রূপ দিতে পারেননি। সেই খেদ থেকেই কিনা ওই সিরিজে ব্যাট হাতে রূদ্রমূর্তি ধারণ করেছিলেন মুমিনুল। সেই ম্যাচের দ্বিতীয় ইনিংসে ২২ রানে অরাজিত থেকে ড্র করে মাঠ ছাড়েন।

পরে ঢাকায় ড্র করা ম্যাচেও হেসেছিল মুমিনুলের ব্যাট। প্রথম ইনিংসে ৪৭ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে অপরাজিত ১২৬! সেবার ১৮৮ গড়ে রান তুলে সিরিজ শেষ করেছিলেনলিটল ডায়নামাইটখ্যাত এই বাঁহাতি। আবার যখন প্রিয় প্রতিপক্ষে বিপক্ষে খেলতে নেমেছেন, প্রথম সুযোগেই অপরাজিত ৬৪! তবে ফুটনোট হলো, আগের দুই ম্যাচ ছিল নিজেদের মাটিতে। এবার একেবারে বিরুদ্ধ কন্ডিশনে। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে। সেখানেও মুমিনুল ব্যাট হাতে নেমেই সফল

বৃষ্টি বাগড়া না দিলে সবুজ গালিচায় বাইন্সসুইং জয় করা ইনিংসটাকে প্রথম দিনেই অনন্য জায়গায় নিতে পারতেন! সে সুযোগ হাতছাড়া হয়নি এখনো দ্বিতীয় দিনে মাঠে নামার আগের কিউইদের বিপক্ষে তার গড়টা দাড়িয়েছে ২২০! মুমিনুল নিশ্চয় সেটাকে আরো অনেকদূর টেনে নিতে চাইবেন বৃষ্টির আর আলোর স্বল্পতায় প্রথম দিনে খেলা হয়েছে মাত্র ৪০. ওভার উইকেটে ১৫৪ রানের স্বস্তি টাইগারদেরঅথচ, ব্যাট হাতে দারুণ আলো ছড়ানো এই ব্যাটসম্যানটিকে নিয়ে বিলাসিতার অন্ত নেই বাংলাদেশের! সেটি আবার অপচয় অর্থে! বাংলাদেশের রঙিন পোশাকের ক্রিকেটে মুমিনুলকে যে খেলানো হয় না খুব একটা তার নামের সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়েছে টেস্টস্পেশালিষ্টের তকমা! সেই টেস্ট ক্রিকেটও আবার কমই খেলার সুযোগ পেয়ে থাকে বাংলাদেশ তাই আবারো যখন টেস্টে নেমেছে টাইগাররা, মুমিনুলও ফিরেছেন রোমাঞ্চ জাগাতে

এই সফরেই নিউজিল্যান্ডে এসে পাঁচটি শহর ঘুরেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। শুরু থেকেই সঙ্গে ছিলেন মুমিনুল। ওয়ানডে আর টিটুয়েন্টিতে এখন ব্রাত্য মুমিনুল টেস্ট খেলার দিন গুনছিলেন। ওয়েলিংটনের বেসিন রিজার্ভে কিউইদের বিপক্ষে নামার আগে একাদশে অবধারিতভাবেই নামটি ছিল মুমিনুলের। তাতে আস্থার প্রতিদান দিয়েই তুলে নিলেন ক্যারিয়ারের ১১তম টেস্ট ফিফটি।

বেসিন রিজার্ভের সবুজ গালিচা যেখানে ব্যাটসম্যানদের জন্য মরণফাঁদ হয়ে অপেক্ষা করে, সেখানে এর আগে কখনো নিউজিল্যান্ডে না খেলা মুমিনুলই সফরকারীদের বড় ভরসার নাম এখন। তার ব্যাটে তাকিয়ে গোটা দেশ। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের (২৬) সঙ্গে ৮৫ রানে জুটি গড়েছেন মুমিনুল। এটি আবার নিউজিল্যান্ডের মাটিতে যে কোনো উইকেটে টাইগারদের তৃতীয় সর্বোচ্চ পার্টনারশিপ। সাকিব আল হাসান রানে মুমিনুলের সঙ্গী হবেন দ্বিতীয় দিনে। তার আগে তামিম ইকবাল ৫৬ রানে প্রথম দিনটি নিজেদের দিকে টেনে রেখেছে বাংলাদেশ।

মুমিনুল হয়তো ফিফটিটাকে সেঞ্চুরিতে টেনে নিতে চাইবেন। ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি হাতছানি দিচ্ছে তাকে। সর্বশেষ সেঞ্চুরির স্মৃতিতে তো ধুলোই জমেছে তার! ২০১৪ সালের নভেম্বরে চট্টগ্রামে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১৩১ রানে অপরাজিত ছিলেন। তারপর সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সে নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি। দীর্ঘদিন টেস্ট খেলেনি বাংলাদেশ।  ২০১৬ সালের শেষটায় ফিরে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলে চার ইনিংসে একটি মাত্র ফিফটি মুমনিুলের। ঢাকায় ঐতিহাসিক টেস্ট জয়ের ম্যাচে ইংলিশদের বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে ৬৬ রান এসেছিল তার ব্যাটে। তার আগে ২০১৫ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা, ভারত পাকিস্তানের বিপক্ষে ৫টি টেস্টে খেলে ফিফটি মাত্র ২টি।

টাইগারপ্রেমীদের চাওয়া এখন তাই সেঞ্চুরিতে স্মৃতির ধুলো মুছুক মুমিনুল। সেটা পারলে কেবল মুমিনুলের জন্যই তো নয়, দলের জন্যও ভালো হয়। তাতে ওয়েলিংটনের বেসিন রিজার্ভে বদলে যাওয়া বাংলাদেশের নতুন কোনো সাফল্যের কাব্য লেখার ভিত্তি তৈরি হবে হয়তো। সুযোগ মিলবে ওয়ানডে টিটুয়েন্টি সিরিজের হোয়াইটওয়াশের ক্ষতে কিছুটা প্রলেপ দেওয়ারও

এখন পর্যন্ত ১৯টি টেস্ট খেলে ১৫৫০ রান করেছেন মুমিনুল। গড়টা এখনো পঞ্চাশের ওপরে, ৫১.৬৬! ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ১৮১ রানের ইনিংসটির সঙ্গে সেঞ্চুরি ১০ ফিফটি তার। (এই পরিসংখ্যান বেসিন রিজার্ভের অপরাজিত ৬৪ রানের ইনিংসটির আগ পর্যন্ত)

LEAVE A REPLY