মোবাইল ব্যাংকিংয়ের লেনদেন সীমা কমলো

মোবাইল ব্যাংকিংয়ের লেনদেন সীমা কমালো বাংলাদেশ ব্যাংক । গতকাল বুধবার বাংলাদেশ ব্যাংকের পেমেন্ট সিস্টেমস বিভাগ থেকে নতুন সীমা নির্ধারণ করে একটি সার্কুলার মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদাতা ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের পাঠানো হয়।

নতুন নির্দেশনা অনুযায়ী, ব্যক্তি হিসাবের ক্ষেত্রে ‘ক্যাশ ইন’ বা নগদ জমা করা যাবে দিনে সর্বোচ্চ ১৫ হাজার টাকা। তবে অনধিক দুবারে এই টাকা জমা করা যাবে। মাসে সর্বোচ্চ এক লাখ টাকা ক্যাশ ইন করা যাবে অনধিক ২০ বারে। আগে দিনে সর্বোচ্চ জমা করা যেত সর্বোচ্চ ২০ হাজার টাকা। সেটা করা যেত অনধিক তিনবারে। দিনে সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা ‘ক্যাশ-আউট’ বা নগদ উত্তোলন করা যাবে অনধিক দুবারে। মাসে ক্যাশ আউট করা যাবে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা, অনধিক ১০ বারে। এ ছাড়া একটি মোবাইল হিসাবে ক্যাশ ইন হওয়ার পর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ওই হিসাব থেকে পাঁচ হাজার টাকার বেশি নগদ উত্তোলন করা যাবে না। আগে ক্যাশ আউটের ক্ষেত্রে দৈনিক লেনদেনের সীমা ছিল সর্বোচ্চ ১৫ হাজার টাকা। আর মাসিক লেনদেন সীমা ছিল সর্বোচ্চ এক লাখ টাকা। ব্যক্তি হিসাব থেকে ব্যক্তি (পিটুপি) হিসাবে অর্থস্থানান্তর করার ক্ষেত্রে আগের লেনদেন সীমাই বলবৎ থাকবে। অর্থাৎ প্রতিদিন সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা এবং মাসে সর্বমোট ২৫ হাজার টাকা ব্যক্তি হিসাব থেকে ব্যক্তি হিসাবে স্থানান্তর করা যাবে।

এমন সিদ্ধান্তের নেওয়ার কারণ হিসেবে বলা হয়, মোবাইল ফিন্যানশিয়াল সার্ভিসেস (মোবাইল ব্যাংকিং নামে পরিচিত) একটি দ্রুত বিকাশমান সেবা, যা অতি অল্প সময়ে সমাজের বিভিন্ন স্তরের বিশেষত নিম্ন আয়ের জনগোষ্ঠীর কাছে বিপুল জনপ্রিয়তা পেয়েছে; কিন্তু কিছু অসাধু ব্যক্তি এই সেবাটির অপব্যবহার করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে, যা দেশ ও জাতির জন্য ক্ষতিকর। এরই পরিপ্রেক্ষিতে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের অপব্যবহার রোধ করতে এবং এর যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করতে নতুন এই নির্দেশনা দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক।

মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদানকারী একটি প্রতিষ্ঠানে কোনো গ্রাহকের একাধিক হিসাব না রাখার নির্দেশনা আগেই দেওয়া আছে। সেই নির্দেশনা মোতাবেক একই প্রতিষ্ঠানে একজন গ্রাহকের একাধিক হিসাব থাকলে একটি হিসাব রেখে বাকি হিসাবগুলো দ্রুত বন্ধ করে দিতে বলেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এ ক্ষেত্রে কোনো কারণে গ্রাহকের সঙ্গে যোগাযোগ করা না গেলে সর্বশেষ যে হিসাবটিতে লেনদেন হয়েছে সেই হিসাবটি রেখে বাকি হিসাবগুলো বন্ধ করে দিতে হবে। বন্ধ করার আগে ওই গ্রাহকের হিসাবে থাকা টাকাগুলো যথাযথভাবে পরিশোধ করতে বলা হয়েছে।

LEAVE A REPLY