ঝুঁকিপূর্ণ মার্কেটে দুর্ঘটনার দায় সিটি করপোরেশন নেবে না

ঝুঁকিপূর্ণ ১২টি মার্কেট ভবনের ভার কমাতে এবং ভবন ছাড়তে ব্যবসায়ীদের একাধিকবার অনুরোধ জানিয়েছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। ব্যবসায়ীরা ডিএনসিসির অনুরোধের তোয়াক্কা না করে এসব ভবনে ব্যবসা করছেন। ঢাকা উত্তরের মেয়র আনিসুল হক বলেছেন, এসব মার্কেটে কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে সিটি করপোরেশন কোনো দায় নেবে না।

আজ মঙ্গলবার গুলশান-২ নম্বরে ডিএনসিসি নতুন নগর ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে মেয়র আনিসুল হক এসব কথা বলেন। ডিএনসিসির মার্কেট এবং ব্যক্তিমালিকানাধীন ঝুঁকিপূর্ণ ভবন বিষয়ে অবহিত করতে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে আনিসুল হক বলেন, উত্তর সিটি করপোরেশনের সাতটি এলাকায় মোট ১২টি মার্কেট ভবন অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) এসব ভবনকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করে। এর মধ্যে কতগুলো ভবন পুরোপুরি ভেঙে ফেলার, কতগুলোতে রেট্রোফিটিং করার সুপারিশ দেয় বুয়েট। জরুরি ভিত্তিতে ভবনগুলোর ভার কমাতে বলে বুয়েট। বুয়েটের সুপারিশমতো ডিএনসিসি মার্কেটের ভার কমাতে এবং ভবন খালি করতে ব্যবসায়ীদের অনুরোধ করে।

মেয়র বলেন, ‘এসব মার্কেটে যেকোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। আমরা বলেছি, এসব ভবন রিস্কি, ছেড়ে দিন। তাঁরা ছাড়েন না। সেখানে দুর্ঘটনা ঘটলে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন কেন দায় নেবে?’

২ জানুয়ারি দিবাগত রাতে আগুনে ধসে পড়া গুলশান-১ নম্বরের ডিএনসিসি কাঁচা মার্কেটটি ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের তালিকায় ছিল। ২০১৩ সালে বুয়েটের ওই প্রতিবেদনে গুলশান-১ কাঁচা মার্কেট সম্পর্কে বলা হয়েছিল, অপরিকল্পিতভাবে মার্কেটটির তৃতীয় ও চতুর্থ তলা বানানো হয়েছে। মার্কেটের দোতলার দোকানগুলোতে ভার অনেক বেশি। জরুরি ভিত্তিতে মার্কেটের তৃতীয় ও চতুর্থ তলা ভেঙে ফেলতে হবে। ভার কমাতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে ভবনগুলোর বিষয়ে বুয়েটের মূল্যায়ন, ভবনগুলোর বর্তমান অবস্থার ছবি তুলে ধরেন মেয়র আনিসুল হক। ঝুঁকিপূর্ণ ১২টি মার্কেট ভবন হচ্ছে গুলশান-২ নম্বর কাঁচা মার্কেট, গুলশান-২ নম্বর পাকা মার্কেট, খিলগাঁও কাঁচা (তালতলা) মার্কেট, খিলগাঁও সুপার মার্কেট, কারওয়ান বাজার আড়ত ভবন, কারওয়ান বাজার ১ নম্বর মার্কেট, কারওয়ান বাজার কিচেন মার্কেট, কারওয়ান বাজার ২ নম্বর মার্কেট, মোহাম্মদপুর টাউন হল পাকা মার্কেট, মোহাম্মদপুর টাউন হল কাঁচা মার্কেট, গাবতলীর প্রান্তিক সুপার মার্কেট ও আমিনবাজার ট্রাক টার্মিনাল মার্কেট।

সংবাদ সম্মেলনে উত্তর সিটি করপোরেশনের মার্কেটের ব্যবসায়ী নেতারাও উপস্থিত ছিলেন। এ সময় মোহাম্মদপুর টাউন হল পাকা মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘ব্যবসায়ীদের বসার অস্থায়ী ব্যবস্থা করে এসব মার্কেট ভাঙেন। মার্কেটে দুর্ঘটনা ঘটলে এর দায়ভার ব্যবসায়ীরা নেব না।’

LEAVE A REPLY