প্রবৃদ্ধি অর্জনে ভূমিকা রাখবে কোকাকোলা: অর্থমন্ত্রী

চালু হওয়া কোকাকোলা কারখানাটি বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি অর্জনে ভূমিকা রাখবে বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। একইসঙ্গে কোকা-কোলার কারখানা স্থাপন করায় বিদেশি বিনিয়োগকারিদের ধন্যবাদ জানান তিনি। আজ বুধবার দুপুরে ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার সীডস্টোর এলাকায় কোমল পানীয় কোকা-কোলা কোম্পানির অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল বেভারেজেস প্রাইভেট লিমিটেডের পণ্য তৈরি ও বোতলজাতকরণ কারখানার উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রী। বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট বলেন, কোকাকোলার এই বিনিয়োগের ফলে বাংলাদেশের জনগণের সামনে ভালোভাবে জীবনযাপন ও জীবনযাপনের মানোন্নয়নের সুযোগ সৃষ্টি হলো। তিনি বলেন, বাংলাদেশের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ বিনির্মাণ ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনের ক্ষেত্রে কোকাকোলাও অংশীদার ও সারথি হতে চায়।

বাংলাদেশের বর্তমান ইতিবাচক পরিবর্তনের ধারায় একটি অপরিহার্য অংশ হতে পেরে আমরা অত্যন্ত আনন্দিত জানিয়ে কোকা-কোলা কোম্পানির প্যাসিফিক গ্রুপের প্রেসিডেন্ট জন মারফি বলেন, কোকা-কোলা কোম্পানি এই বিনিয়োগকে হালকাভাবে নেয়নি। আমরা নানা কারণেই বাংলাদেশে এই কারখানা স্থাপন ও বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণ হলো ব্যবসায়িক প্রবৃদ্ধি অর্জনে বাংলাদেশের সংস্কার কর্মসূচি গ্রহণের ইতিবাচক মনোভাব এবং উচ্চ দক্ষতাসম্পন্ন জনবলের সহজলভ্যতা। কোম্পানির এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট ও বটলিং ইনভেস্টমেন্টস গ্রুপের প্রেসিডেন্ট ইরিয়াল ফিন্যান বলেন, বাংলাদেশে আমাদের ব্যবসায়িক কার্যক্রমের ক্ষেত্রে এক অসাধারণ মুহুর্ত।

কারখানাটি প্রতিষ্ঠিত হওয়ায় ৭৪ মিলিয়ন বা ৭ কোটি ৪০ লাখ ডলার বিনিয়োগের মাধ্যমে ব্যবসায় সম্প্রসারণে সম্ভাবনার নতুন প্রান্ত উন্মোচিত হলো।   প্রাথমিকভাবে এই কারখানা থেকে দুই ধরণের পণ্য উৎপাদন হবে। পণ্যগুলো হলো- কোকা-কোলা, ফানটা ও স্প্রাইট এবং কিনলে পানি। কারখানাটি প্রতিষ্ঠিত হওয়ায় সরাসরি দেড় শতাধিক মানুষের কর্মসংস্থানের পাশাপাশি পরিবহন, উৎপাদন ও প্যাকেজিংসহ নানা প্রক্রিয়ায় এ দেশের সহস্রাধিক মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হলো।

LEAVE A REPLY