আশুলিয়ায় তিন ভুয়া সেনা সদস্য আটক

তাঁদের মুচমুচে প্রেম এখন টলিপাড়ার হট টপিক৷ সুপারস্টার দেব এবং মডেল রুক্মিণী নিজেদের সম্পর্কের কথা কিন্তু ফ্যানদের কাছ থেকে লুকিয়ে যাননি৷ জন্মদিনের পার্টি থেকে ছবির প্রিমিয়ার, অনেক জায়গাতেই হাতে হাত ধরে ঘুরে বেড়াতে দেখা গেছে বড়পর্দার এই দুই লাভ-বার্ডকে৷ এবার সোশ্যাল মিডিয়াতেও নিজেদের আবেগ আর ভালবাসা ধরে রাখতে পারলেন না তাঁরা৷

চার দেয়ালের মধ্যে দুই তারকার কেমিস্ট্রি ভক্তদের কাছে এখনও রহস্য৷ কিন্তু সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে তাঁদের কথোপকথন দেখে তাঁদের প্রেমের সেই গোপন রসায়ন ভালভাবেই আন্দাজ করতে পারবেন সিনেপ্রেমীরা৷ ভাবছেন তো, কীভাবে পরস্পরের প্রতি ভালবাসা প্রকাশ করল এই জুটি? কখনও রুক্মিণীকে ‘চ্যাম্পিয়ন’ বলে সম্বোধন করলেন দেব তো আবার কখনও অভিনেতার সুঠাম চেহারার তারিফ দেখা গেল বান্ধবীর টুইটে৷

অভিনেতা দেবের হাত ধরেই বাংলা ছবির জগতে পা রাখছেন রুক্মিণী৷ পরিচালক রাজ চক্রবর্তীর ‘চ্যাম্প’ ছবিতে একসঙ্গে অভিনয় করতে দেখা যাবে তাঁদের৷ সেই ছবিরই এখন চুটিয়ে প্রচার চলছে৷ একটি ইংরেজি সংবাদমাধ্যমের ‘মোস্ট ডিজায়রেবল নায়িকা’দের তালিকায় তিন নম্বরে স্থান পেয়েছেন তিনি৷ শুভশ্রী, পাওলির মতো জনপ্রিয় অভিনেত্রীদের পেছনে ফেলে দিয়েছেন দেবের বান্ধবী৷ আর সেই খবরেই বেজায় খুশি বয়ফ্রেন্ড৷ টুইটারে রুক্মিণীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে দেব লেখেন, ‘একটু পাত্তা দিও৷ খুব খুশি হয়েছি৷ এভাবেই সাফল্যের সিঁড়ি চড়তে থাকো। ’ সঙ্গে একগুচ্ছ চুমুর ইমোজিও পাঠিয়েছেন তিনি৷

উত্তরে দেব যা পেলেন, তাতে নারী ফ্যানদের মুখ ভার হতেই পারে৷ তবে দেব দারুণ খুশি৷ রুক্মিণী বয়ফ্রেন্ডকে ধন্যবাদ জানিয়ে টুইট করেন, ‘আমাকে এতদূর নিয়ে আসার জন্য ধন্যবাদ মিস্টার সিক্স প্যাকস৷’ চুম্বনের পাল্টায় চুম্বনই ফিরিয়ে দিলেন তিনি৷ এতে দেবের উত্তর, খাওয়া-দাওয়ায় আর কন্ট্রোল নেই৷ তাই সিক্স প্যাক এখন ফ্যাকাসে হয়ে গেছে৷ এসব টুইটেই ফ্যানরা আন্দাজ করে নিতেই পারেন, দেব এবং রুক্মিণীর মধ্যে সম্পর্ক গভীর থেকে গভীরতরই হয়ে চলেছে।চাকুরি দেওয়ার নামে প্রতারণা ও টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে তিন ভুয়া সেনাবাহিনী সদস্য আটক করেছে র‌্যাব-১ এর সদস্যরা। আটকের পর তাদের আশুলিয়া থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) রাত ১১টায় ভুক্তভোগীদের অভিযোগের ভিত্তিতে তাদের আটক করে থানায় হস্তান্তর করা হয়।

এরা হলো- গোপালগঞ্জ জেলার মনিরকান্দি গ্রামের মৃত ইসমাইল বিশ্বাসের ছেলে জিন্নাত আলী বিশ্বাস (৬০), কিশোরগঞ্জ জেলার মাধবদী গ্রামের রাশেদ খন্দকারের ছেলে হাসান খন্দকার (৪৪) এবং খুলনা জেলার গোয়ালখালি গ্রামের মোকাম মোল্লার ছেলে তরিকুল ইসলাম (৪০)।

ভুক্তভোগী মোশারফ হোসেন ও জোবায়ের হোসেন লিখিত অভিযোগের মাধ্যমে জানায়, গতবছর ঢাকায় যাওয়ার পথে রাশেদের সঙ্গে পরিচয় হয়। তখন সে সেনাবাহিনীর একজন সদস্য বলে পরিচয় দেয়। পরে তার সঙ্গে সখ্য গড়ে উঠলে সাড়ে ছয় লাখ টাকার বিনিময়ে সেনাবাহিনীতে চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখায়। পরে তার কাছে একই গ্রামের কয়েকজন মিলে প্রায় ১৩ লাখ টাকা জমা দিলে তারা ভুয়া নিয়োগপত্র প্রদান করে।

এ সময় বিষয়টি নিয়ে তাদের নিকট টাকা ফেরত চাইতে গেলে হত্যার হুমকিসহ জোরপূর্বক সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর রেখে বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করে। পরে ঘটনাটি র‌্যাবকে জানালে তারা বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তিন ভুয়া সেনাবাহিনী সদস্যকে আটক করে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে আশুলিয়া থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) কামরুল ইসলাম জানান, র‌্যাব-১ এর পক্ষ থেকে তিন ভুয়া সেনাবাহিনী সদস্যকে হস্তান্তর করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আশুলিয়া থানায় প্রতারণা ও টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে একটি মামলা দায়ের হয়েছে।

LEAVE A REPLY