মোবাইল দিয়ে নির্মিত আন্তর্জাতিক চলচিত্র উৎসব

শেষ হলো ইউল্যাব সিনেমাস্কোপ আয়োজিত মোবাইল দিয়ে নির্মিত আন্তর্জাতিক চলচিত্র উৎসব। শনিবার ধানমণ্ডিতে ইউনিভার্সিটি অফ লিবারেল আর্টস অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠানে বিজয়ীর হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়।

পুরস্কার প্রাপ্ত চলচ্চিত্র সিপনোবিচ্চে ইক্কো দিন, পরিচালক আরিফ আরমান বাদল। এছাড়া প্রদর্শিত চলচ্চিত্রগুলোর পরিচালকদের সবার হাতে সনদ তুলে দেন অতিথিরা।

দেশ-বিদেশ থেকে পাঠানো মোট ২৯ টি চলচিত্র থেকে বাঁচাইকৃত ছয়টি সিনেমা (ফিস বোন, পরিচালক আল আমিন সায়মন; নন ভায়োলেন্ট ক্রিমিন্যাল, আমেরিকান পরিচালক জন ভন ব্ল্যাঙ্কেনশিপ ; নির্বান, পরিচালক জাহিদ হাসান ফাহাদ ও শাহনেওয়াজ আহমেদ; সিপনোবিচ্চে ইক্কো দিন, পরিচালক আরিফ আরমান বাদল; ম্যাক্স ইতালির পরিচালক তোমাসো অ্যাকুয়ার; সিনেমা, পরিচালক মেহরাব জাহিদ)।

অনুষ্ঠানে উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ইমরান রহমান। অতিথিদের মধ্যে ছিলেন গাজী টেলিভিশনের প্রধান বার্তা সম্পাদক ইকবাল করিম নিশান, প্রযোজক ও পরিচালক ফুয়াদ চৌধুরি। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়টির মিডিয়া স্টাডিজ অ্যান্ড জার্নালিজম (এমএসজে) বিভাগের প্রধান প্রফেসর জুড উইলিয়াম হেনিলো, সিএমএফসির উপদেষ্টা মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন।

উদ্বোধনী বক্তব্য শেষে পুরো প্রতিযোগিতার ব্যাপারে পরিচিতি বক্তব্য রাখেন ফেস্টিভ্যাল প্রধান মহিম আহমেদ নাঈম।

জুড উইলিয়াম হেনিলো বলেন, খুবই রোমাঞ্চিত আমি। ছোট থেকেই অনেক বড় কিছু আসে। আমি আয়োজক তথা, সিনেমাস্কোপকে ধন্যবাদ জানাই। এমন একটা পদক্ষেপ নেওয়ার কারণেই আমরা আজ এমন কিছু দেখতে পারলাম। আমি আইবিডিবিকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি স্পন্সর হিসেবে কাজ করার জন্য। শুধু তাই নয়, আমাদের বিচারকদেরকে সময় দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ। তাদের কারণেই আমরা সেরা কিছু চলচ্চিত্র নির্বাচিত করতে পেরেছি।

সিনেমাস্কোপের এডভাইসর ও ইউল্যাবের সিনিয়র লেকচারার সাজ্জাদ হোসেন বলেন, আওয়ার্ড বিজয়ীদেরকে ধন্যবাদ। এবার আমরা প্রতিযোগিতা হিসেবে এই আয়োজনটা করলাম। কিন্তু পরেরবার থেকে আমরা প্রতিযোগিতা নয়,বরং চলচিত্র উৎসব করবো। আমি এখনই ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের তারিখ জানিয়ে দিচ্ছি, যেটা নির্মাতাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সিনেমাস্কোপ মোবাইল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল ২০১৮ এর জন্য চলচিত্র জমা নেওয়ার সময় শুরু হবে আগামী ফেব্রুয়ারি থেকে। আশা করছি আমরা এর চাইতে আরো বড় করে আয়োজন করতে পারবো। একই সঙ্গে পুরস্কারের প্রাইজমানির পরিমাণও বাড়াতে পারবো।

নির্মাতা ও প্রযোজক ফুয়াদ চৌধুরি বলেন, সবগুলো চলচ্চিত্র ই আমরা দেখলাম। কেউ আবস্ট্রাক্ট নিয়ে কাজ করেছেন, কারো গল্প ছিলো। আমার কাছে বেশ ভালো লেগেছে। এগুলো আসলে নিজে নিজে করা। ব্যক্তিগতভাবে নির্মিত, ব্যক্তিগত উদ্যগে নির্মিত। প্রত্যেকটি চলিচত্ত্রর বলা গল্প দারুণ ছিলো। একটা ব্যাপার মাথায় রাখা দরকার নির্মাতাদের, সেটা হলো অবশ্যই দর্শকদের কথা মাথায় রাখতে হবে সবাইকে। একটা কথা না বললেই নয়, ভবিষ্যতে অল্টারনেটিভ সিনেমা আমাদের জন্য অনেক বড় প্ল্যাটফর্ম হতে যাচ্ছে।

অনুষ্ঠানটির স্পন্সর হিসেবে ছিলো আইপিডিসি। ইউল্যাব অ্যাপ্রেন্টিস প্রোগ্রাম সিনেমাস্কোপের পাশাপাশি এই আয়োজনে আরো ছিলো ইউল্যাবের পিআরফরইউ, রেডিও ক্যাম্পবাজ, ফিল্ম ক্লাব, ইউল্যাব টিভি, দ্য ইউল্যাবিয়ান, সিনেমাস্কোপ।

LEAVE A REPLY