আল্লাহর সাক্ষাৎ লাভ

আল্লাহ তাআলা পরকালে তাঁর অনুগত বান্দাদের জন্য শ্রেষ্ঠ উপহারস্বরূপ তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। এ সাক্ষাতে চলে অনন্তকাল। তা হবে বান্দার সঙ্গে আল্লাহ তাআলার প্রেমের সাক্ষাৎ।
এছাড়া প্রতিটি মানুষ কিয়ামতের দিন তার প্রতিপালকের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবে। চাই সে ভালো আমল করুক বা খারাপ আমল করুক। হোক সে মুমিন নতুবা কাফের।

আল্লাহ তাআলা কিয়ামতের দিন মুমিন বান্দার সঙ্গে যে সাক্ষাৎ দেবেন, সে সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘যেদিন আল্লাহর সঙ্গে মিলিত হবে; সেদিন তাদের অভিবাদন হবে সালাম। তিনি তাদের জন্য সম্মানজনক পুরস্কার প্রস্তুত রেখেছেন।’ (সুরা আহজাব : আয়াহ ৪৪)

আল্লাহ তাআলা দুনিয়ার ঈমানদারদের সুসংবাদ প্রদানে ইরশাদ করেন, ‘আর আল্লাহকে ভয় করতে থাক। আর নিশ্চিতভাবে জেনে রাখ, আল্লাহর সঙ্গে তোমাদের সাক্ষাৎ করতেই হবে। আর যারা ঈমানদার তাদের সুসংবাদ জানিয়ে দাও।’ (সুরা বাকারা : আয়াত ২২৩)

আল্লাহ তাআলা দিদার লাভ করা সহজ ব্যাপার নয়; তাও তিনি কুরআনে মানুষকে জানিয়ে দিয়েছেন। ইরশাদ হচ্ছে, ‘হে মানুষ! তোমাকে তোমার পালনকর্তা পর্যন্ত পৌঁছতে কষ্ট স্বীকার করতে হবে, অতপর তার সাক্ষাৎ ঘটবে।’ (সুরা ইনশিকাক : আয়াত ৬)

পরিশেষে…
যারা আল্লাহ সঙ্গে সাক্ষাৎ লাভ করার প্রত্যাশী তাদের মাওলার পাঠানো কুরআন অনুযায়ী জীবন-যাপন করা আবশ্যক। যারা আল্লাহ বিধি-বিধান পালন করে তাঁর নৈকট্য অর্জন করতে সক্ষম হবে, তারাই সফলকাম হবে। তাদের জন্যই রয়েছে আল্লাহর সঙ্গে সাক্ষাৎ লাভের মহা সুযোগ।

হাদিসে এসেছে-
হজরত ওবাদা ইবনে সামেত রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর সঙ্গে সাক্ষাত করা পছন্দ করে; আল্লাহও তাঁর সঙ্গে সাক্ষাৎ করা পছন্দ করেন। আর যে ব্যক্তি আল্লাহর সঙ্গে সাক্ষাৎ করা অপছন্দ করেন; আল্লাহও তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করাকে অপছন্দ করেন। (বুখারি ও মুসলিম)

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে আল্লাহ তাআলার দিদার লাভ করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

LEAVE A REPLY