নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য নাম প্রস্তাব করবে বিএনপি

সার্চ কমিটির আহ্বানে সাড়া দিয়ে নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য নাম প্রস্তাব করবে বিএনপি। গতকাল রোববার বিএনপির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এ বিষয়ে প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে সোয়া এক ঘণ্টা স্থায়ী কমিটির বৈঠক চলার পর আজ রাত ৯টা পর্যন্ত মুলতবি করা হয়েছে। আজ ২০ দলীয় জোটের মহাসচিব পর্যায়ের বৈঠকের পর রাতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। নাম চূড়ান্ত করার সিদ্ধান্ত দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ওপরই নেতারা ছেড়ে দিতে পারেন বলে সূত্র আভাস দিয়েছে।

গতকাল রাতে গুলশানের কার্যালয়ে খালেদা জিয়ার সভাপতিত্বে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। রাত সাড়ে ৯টা থেকে পৌনে ১১টা পর্যন্ত বৈঠক চলে। বৈঠকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, তরিকুল ইসলাম, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, ড. আবদুল মঈন খান ও নজরুল ইসলাম খান উপস্থিত ছিলেন।

সূত্র জানায়, বৈঠকের শুরুতে খালেদা জিয়া নেতাদের উদ্দেশে বলেন, আমরা রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের কাছে সার্চ কমিটি গঠনের ব্যাপারে নাম প্রস্তাব করেছিলাম। তবে আমাদের প্রস্তাবিত নাম থেকে একজনও সার্চ কমিটিতে রাখা হয়নি। এখন নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য সার্চ কমিটি নাম চেয়েছে। নাম দেওয়া উচিত হবে কি-না, সে ব্যাপারে নেতাদের পরামর্শ চান খালেদা জিয়া।

সূত্র জানায়, সার্চ কমিটিতে নাম দেওয়া নিয়ে দলের ভেতর ভিন্নমত থাকলেও স্থায়ী কমিটির বৈঠকে অধিকাংশ নেতাই নাম দেওয়ার পক্ষে মত দিয়েছেন। বৈঠকে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনসহ অধিকাংশ সিনিয়র নেতা নাম দেওয়ার পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেন। তারা বলেন, এ মুহূর্তে বিএনপির ইতিবাচক রাজনৈতিক কৌশল নিয়ে এগোনো উচিত হবে। সার্চ কমিটির আহ্বানে সাড়া না দিলে দেশে-বিদেশে বিএনপির সমালোচনা হবে। এতে বিএনপি নির্বাচন কমিশন গঠনের প্রক্রিয়া থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে। তাতে নির্বাচনে অংশ নেওয়া নিয়েও প্রশ্ন দেখা দিতে পারে।

সূত্র জানায়, বৈঠকে দু-একজন নেতা বলেন, বিএনপি নাম দিলেও সার্চ কমিটি তা গ্রহণ করবে না। নাম দিয়েও লাভ হবে না। বিএনপির দেওয়া নাম থেকে কাউকে নির্বাচন কমিশনার করা হবে না। তবে সার্বিক রাজনৈতিক হিসাব-নিকাশ কষে নাম দেওয়া যেতে পারে।

স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য বলেন, নির্বাচন কমিশন গঠন প্রক্রিয়া থেকে সরে আসা ঠিক হবে না। তারা এখনও আশা করেন, নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন হবে।

বৈঠক শেষে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠক মুলতবি করা হয়েছে। সোমবার আবার বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। ওই বৈঠকে নাম দেওয়ার ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ২০ দলীয় জোটের বৈঠকের সঙ্গে সার্চ কমিটিতে নাম দেওয়ার কোনো সম্পর্ক নেই।

এদিকে নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের লক্ষ্যে ছয় সদস্যের সার্চ কমিটির প্রথম বৈঠক শনিবার অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে ৩১ রাজনৈতিক দলের সংলাপ হয়েছে। ওই সব রাজনৈতিক দলের কাছে নির্বাচন কমিশন গঠনের লক্ষ্যে পাঁচজনের নামের তালিকা চেয়ে চিঠি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সার্চ কমিটি। আগামীকাল মঙ্গলবার বেলা ১১টার মধ্যে নাম পাঠাতে বলা হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে শনিবার সন্ধ্যায় সার্চ কমিটি নামের তালিকা চেয়ে বিএনপির কাছে চিঠি দেয়।

গতকাল রোববার দুপুরে নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, সার্চ কমিটি বিএনপিকে চিঠি দিয়েছে। চিঠিতে পাঁচজনের নামের তালিকা চাওয়া হয়েছে। নাম দেওয়া হবে কি-না, তা দলের নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির বৈঠকে সিদ্ধান্ত হবে।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, দলে সিদ্ধান্ত হলে আমরা নাম দেবো। সমকাল

LEAVE A REPLY