বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমিতে ভারত-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ ভবন ও আইসিটি সেন্টার

বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা বলেছেন ‘বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমিতে ভারত-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ ভবন ও আইসিটি সেন্টার নির্মাণে সর্বাত্মক সহযোগিতা করা হবে।
আমি খুবই খুশি যে, এমন একটি ঐতিহ্যময় স্থানে এই কাজটি হতে যাচ্ছে’।
বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমিতে ভারত-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ ভবন ও আইসিটি সেন্টার নির্মাণের কথা উল্লেখ করে ভারতীয় হাই কমিশনার বলেন- ‘উপযুক্ত স্থানেই ভবনটি নির্মাণ হতে যাচ্ছে। এতে আমার খুব ভালো লাগছে। এখানে আইসিটি সেন্টার নির্মাণ হলে দু’দেশের জন্যই তা নতুন মাইলফলক হবে’।
রাজশাহীর চারঘাটের সারদায় বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমি পরিদর্শনকালে ভারতীয় হাইকমিশনার এসব কথা বলেন। এ সময় সফরসঙ্গী ও পুলিশ একাডেমীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা তার সঙ্গে ছিলেন। পরে বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমি পরিদর্শন বইয়ে সাক্ষর করেন ভারতীয় হাই কমিশনার।
উপলব্ধির কথা জানাতে গিয়ে ভারতীয় হাই কমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা বলেন- ‘পদ্মা নদীর কোল ঘেঁষা এই পুলিশ একাডেমিতে আসতে পেরে আমি খুবই খুশি। এই স্থানটি দেখার ইচ্ছে ছিল আমার’।
পরিদর্শনকালে এর ইতিহাস ও ঐতিহ্য সম্পর্কে ভারতীয় হাই কমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলাকে অবহিত করেন বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমির ভাইস প্রিন্সিপাল মো. আবদুল্লাহ আল-মাহমুদ।
এ সময় রাজশাহীতে নিযুক্ত সহকারী হাই কমিশনার অভিজিত চট্টোপাধ্যায়, রাজশাহীর অতিরিক্ত ডিআইজি বখতিয়ার আলম, লোকমান হাকিমসহ একাডেমির কর্মকর্তারা তার সঙ্গে ছিলেন।
বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমি পরিদর্শন শেষে ভারতীয় হাই কমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা ‘জয় কালিবাড়ি’ মন্দিরের নির্মাণকাজ পরিদর্শন করতে নাটোরের উদ্দেশে রওনা দেন।
প্রসঙ্গত, ভারত সরকারের উদ্যোগে বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমিতে ‘ভারত-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ ভবন ও একটি আইটি সেন্টার প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। ২০১৫ সালের জুন মাসে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের সময় দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী যৌথভাবে প্রকল্পটি উদ্বোধন করেন।

LEAVE A REPLY