মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছে মিয়ানমার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মিয়ানমারের নিরাপত্তাবাহিনী রাখাইন প্রদেশে সংখ্যালঘু মুসলিম রোহিঙ্গাদের ওপর ব্যাপক হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে ও নারীদের ধর্ষণ করেছে। একইসঙ্গে রোহিঙ্গাদের বাড়ি-ঘরে আগুন দিয়েছে। সম্ভবত দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী মানবতাবিরোধী অপরাধ ও জাতিগত নিধনযজ্ঞে লিপ্ত। জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক কার্যালয়ের এক প্রতিবেদনে এ দাবি করা হয়েছে।
সুইজারল্যান্ডের জেনেভা থেকে প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর অত্যাচার-নিপীড়ন এবং সহিংসতার ভয়ঙ্কর সব সাক্ষ্য প্রকাশ করা হয়েছে। রাখাইন থেকে পালিয়ে আসা এক মহিলা জাতিসংঘের তদন্ত কর্মকর্তাদের জানিয়েছেন, তাঁকে ধর্ষণের চেষ্টাকালে পাঁচ বছর বয়সী মেয়ে বাঁচাতে আসলে হামলাকারীরা গলা কেটে তাকে হত্যা করে। আর জাতিসংঘের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গত অক্টোবরে পুলিশ ফাঁড়িতে হামলার ঘটনার পর থেকে নিপীড়নের মুখে অন্তত ৯২ হাজার রোহিঙ্গা বাস্তুচ্যুত হয়েছে।
জাতিসংঘের চার তদন্ত কর্মকর্তারা রাখাইনের মংডু থেকে পালিয়ে বাংলাদেশের কক্সবাজারে আশ্রয় নেয়া ২২০ জন রোহিঙ্গার সাক্ষ্য গ্রহণ করেছেন। দেখা গেছে, এসব মানুষের পরিবারের অর্ধেক মানুষই নিহত হয়েছেন। ১০১ জন নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন।

LEAVE A REPLY