টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার লাউহাটি ইউনিয়নের পাচুরিয়া গ্রামের বাদল চক্রবতীর বাড়ির বিল্ডিংয়ের ছাদে, দেয়ালে ও বেশ কয়েকটি গাছে অর্ধশতাধিক মৌচাক রয়েছে। দেখে মনে হয় যেন, মৌমাছির চাষ করা হয় ওই বাড়িতে। কিন্তু চাষ নয় প্রাকৃতিকভাবেই চাক বসিয়ে বাড়িটিতে বাসা করে নিয়েছে মৌমাছিরা। ওই সব চাক থেকে বাড়ির মালিক সনাতন পদ্ধতিতে মধু সংগ্রহ করে আসছেন।

বাড়ির মালিক বাদল চক্রবতী জানান, প্রায় সাত বছর থেকে তার বাড়িতে এই মৌচাকগুলো রয়েছে। তবে সরিষা ফুলের মৌসুমে চাকের পরিমাণ বেড়ে যায়।

দূর থেকে বাড়িটি দেখলে মনে হয় যেন মৌমাছির বাড়ি। প্রতিদিন মানুষ চাক দেখতে এসে অবাক হয়ে যান। এসব মৌচাক থেকে শুধু সরিষা মৌসুমেই দুইবার মধু সংগ্রহ করা হয়। প্রতিবার প্রায় ৯০ কেজি করে মধু সংগ্রহ করতে পারেন বাড়ির মালিক। তরে মধু সংগ্রহ ও সংরক্ষণ বিষয়ে কোনো প্রশিক্ষণ না থাকায় সনাতন পদ্ধতিতেই মধু সংগ্রহ করেন তিনি।

মৌমাছি পরিচর্যা, মধু সংগ্রহ ও সংরক্ষণ বিষয়ে জানতে পারলে আরও অধিক পরিমাণে মধু সংগ্রহ করা সম্ভব হবে বলে জানায় বাদল চক্রবতী। তবে বিষয়টি এখনো কৃষি বিভাগের কেউ জানেন না বলেও জানান তিনি।

LEAVE A REPLY