ভারতের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে উমেশ যাদবকে বাউন্ডারি মেরে ক্যারিয়ারের পঞ্চম শতক তুলে নিয়েছেন ‘লিটল ম্যান’খ্যাত মুশফিক।

শেষ পর্যন্ত রবীচন্দ্রন অশ্বিনের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচে থামে ২৬২ বলের এ লড়াই। এতেই মুশফিক ১২৭ রান তুলে নেন, যাতে রয়েছে ১৬টি চার ও দুটি ছক্কা।

পঞ্চম শতকের পথে মুশফিক ছাড়িয়ে গেলেন অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে। এতদিন চারটি করে শতকে দু’জন একই বৃন্তে ছিলেন।

মুশফিকের পাঁচটি শতক এসেছে ভারত, নিউজিল্যান্ড, শ্রীলংকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। এর মধ্যে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশ অধিনায়কের এটি দ্বিতীয় শতক। ২০১০ সালে চট্টগ্রামে তিনি ধোনিদের বিপক্ষে ১১৪ বলে করেছিলেন ১০১ রানের দুর্দান্ত ইনিংস।

এর বাইরে গত মাসে নিউজিলান্ডের বিপক্ষে মুশফিক ১৫৮ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন। তার বাকি শতকগুলোর মধ্যে ২০১৪ সালে কিংসটাউনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ১১৬ ও ২০১৩ সালে গলেতে শ্রীলংকার বিপক্ষে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি (২০০)।

আর সাকিব আল হাসানের চারটি শতকের দুটিই এসেছে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। একটি গত মাসে নিউজিল্যান্ড সফরে গিয়ে ২১৭, অন্যটি ২০১০ সালে হ্যাশির্টনে ১০০ রান। বাকি দুটির একটি পাকিস্তানের বিপক্ষে ২০১১ সালে ঢাকায়, ১৪৪ রান। আর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সাকিব খুলনাতে করেন ১৩৭ রান।

এই টেস্টেই অবশ্য মুশফিক সাকিব, তামিম ও হাবিবুল বাশারের পর তিন হাজারি ক্লাবের মাইলফলক স্পর্শ করেছেন।

LEAVE A REPLY