বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্মের মধ্যে উদ্ভাবনী ও যুগোপযোগী ভাবনার নিরিখে দেশ তথা বৈশ্বিক অর্থনীতিকে সাফল্যমণ্ডিত করার উদ্দেশ্যে

রাজধানী ঢাকার কৃষিবিদ ইন্সটিটিউটে প্রায় ২৫০ জন তরুণের উপস্থিতিতে স্বনামধন্য সামাজিক উদ্যোক্তা বিষয়ক যুব সংগঠন ইয়ুথ স্কুল ফর সোশ্যাল এন্টারপ্রিনার্স – ওয়াইএসএসই এর আয়োজনে ১০ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হলো ‘নেক্সট জেনারেশন কার্নিভাল- ১৭’।
উক্ত অয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সেলিমা আহমদ – সভাপতি বাংলাদেশ উইমেন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (বিডব্লিউসিসিআই), সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সেলিনা বশির কবির – ম্যানেজিং ডিরেক্টর মাইক্রোসফট বাংলাদেশ, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ডাঃ রুবিনা হুসাঈন – সহসভাপতি বাংলাদেশ ফেডারেশন অব উইমেন এন্টারপ্রিনার্স ( বিএফডব্লিউই) এবং ইবনুল সাঈদ রানা – চেয়ারম্যান এবং সিইও নিরাপদ ডিভোলাপমেন্ট ফাউন্ডেশন ।
বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, আশফাক জামান- ডিরেক্টর ম্যাক এন্ড কোং,  সাইয়েদ ফজলে নিয়াজ- এন্টারপ্রাইজ উপদেষ্টা আইএলও, জি সামদানি ডন- প্রধান নির্বাহী ডন সামদানি, নাভিদ মাহবুব- প্রাক্তন নির্বাহী আইবিএম ও কমিডিয়ান, মোঃ আদনান হোসাঈন – প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ইটস ইউম্যানিটি ফাউন্ডেশন, শাখাওয়াত হোসাইন- ম্যানেজিং ডিরেক্টর বিডি ভেঞ্চার লিমিটেড, এলেক্স মেকেঞ্জি – কনটেন্ট প্রডিউসার, সজীব এম খায়রুল ইসলাম- প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সোশ্যাল বিজনেস ইয়ুথ এল্যায়েন্স, নাজমুস আহমেদ আলবাব – প্রধান নির্বাহী ঢাকা স্টুডিও অব ডিজাইন, ফাতেমাতুজ যোহরা – রিলেশনশিপ ম্যানেজার ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড, আনোয়ার এহতেসাম খন্দকার – হেড অব কমিউনিকেশন এন্ড ব্রান্ডিং ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড, ড. আলমাসুর রহমান – প্রখ্যাত মোটিভেশনাল ট্রেইনার ও চেয়ারম্যান প্রোএকটিভ একাডেমি, আরিফ সৈয়দ – উদ্যোক্তা ও অভিনেতা, আশিক মিশু- প্রতিষ্ঠাতা হ্যালো ইভেন্টস, শাহানা শারমিন, সিদ্দিক হাসান, ইমরান নেওয়াজ খুরশিদ, ফেরদৌস মুত্তাকিন,আবদুল্লা আল মাহমুদ, দেবাশীষ ভট্টাচার্য, সিদ্দক হাসান শেজুতি, ইফরাত জাহিন কুঞ্জ, আতাউর রহমানসহ প্রমুখ।
‘নেক্সট জেনারেশন কার্নিভাল-১৭’ এর কনভেনার ও কাবুলিওয়ালা ডটকম এর কর্ণধার জাবেদ মাওলার বক্তৃতার মধ্যদিয়ে কার্নিভালের সূচনা হয়।
তারপর, স্বাগত বক্তব্যে ওয়াইএসএসই এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি শেখ মোহাম্মদ ইউসুফ হোসেন বলেন, ” বাংলাদেশ তথা বিশ্বকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সামাজিক উদ্যোক্তাদের প্রয়োজন অনস্বীকার্য, আমাদের তারুণ্যশক্তির সম্পৃক্ততায় সামাজিক উদ্যোগ ক্রমেই বৃদ্ধি হোক এবং ‘উদ্যোক্তা’ একটি পেশা হিসেবে সমাজে সর্বোপরি স্বীকৃত হোক, তাহলে ওয়াইএসএসই এর সার্থকতা। “
সম্মানিত অতিথির বক্তব্যে সেলিনা বশির কবির বলেন, ” তথ্যপ্রযুক্তির বিচরণে ব্যবসা সহজতর হয়েছে, নারীর ক্ষমতায়ন দৃঢ় করতে তথ্যপ্রযুক্তি অন্যতম ভূমিকা পালন করছে আর এর সার্বজনীনতা হ্রাস করবে লিঙ্গ বৈষম্য। প্রযুক্তির ব্যবহার যত ‘মাইক্রো ক্রেডিট’ এর সাথে সম্পৃক্ত হবে তত তৃণমূলে নারী উদ্যোক্তা বৃদ্ধি পাবে । কাজেই, তরুণের শ্লোগান হোক ‘প্রযুক্তির জয়’।”
প্রধান অতিথির বক্তব্যে সেলিমা আহমদ বলেন,  ” উদ্যোক্তার থাকে সৃজনশক্তি আর সৃজনেই তো প্রশান্তি ; একজন উদ্যোক্তা মায়ের মতো, মা যেমন সন্তানের খারাপ প্রত্যাশা করেনা তেমনি দায়িত্ববোধসম্পন্ন উদ্যোক্তাও সকলের ভালো চায়। ‘হোপ ফর প্রফিট’ উদ্যোক্তার লক্ষ্য হলেও প্রফিট বলতে শুধুই অর্থকে বুঝায় না সমাজের উন্নয়নসহ নানাবিধ বিষয় বুজায়। “
কার্নিভালে ওয়াইএসএসই এর সাথে সম্পৃক্ত ১২জন ট্রেইনির সফল সমাপ্তির সনদপত্র ও পুরষ্কার প্রদান করা হয় এবং সমাপনী বক্তব্য শেষে, ওয়াইএসএসই এর সাফল্যমণ্ডিত দুই বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে কেক কাটা হয়।
উল্লেখ্য, কার্নিভালে সামাজিক উদ্যোগের সাথে সম্পৃক্ত উদ্যোক্তা এবং সামাজিক উদ্যোগে সহায়তাকারীদের ৯ টি ক্যাটাগরিতে পুরস্কৃত করা হয়।

LEAVE A REPLY