রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ভালোবাসা দিবসে তারুণ্যের অনাবিল আনন্দে উচ্ছ্বসিত উত্তরবঙ্গের শ্রেষ্ঠ্য এ বিদ্যাপীঠ। ভালোবাসার আনন্দে মেতে উঠে প্রজাপতির ডানায় ভাসছে তরুণ জুটিরা। মুঠোফোনের মেসেজ, ই-মেইল অথবা অনলাইনের খুদে বার্তা ছোট ছোট প্রেমবার্তা ধ্বনিত হচ্ছে আকাশে-বাতাসে।
সকাল থেকেই ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন ধরনের ফুল হাতে আসতে দেখা গেছে। সেই সাথে অনেকেই আবার বাহারি রঙের পাঞ্জাবি, শাড়ি পড়ে এসেছেন। ক্যাম্পাস খোলা থাকলেও দিবসটিতে অনেকেই ক্লাশ উপেক্ষা করে বন্ধু-বান্ধুব, আপনজনদের চমক দিতে ব্যস্ত ছিলেন।
এছাড়াও ব্যতিক্রমী বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে রাবিতে। মঙ্গলবার দুপুরে ‘প্রেম বঞ্চিত সংঘের’ ব্যানারে শতাধিক তরুণ-তরুণী এ কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করে। বিশ্ববিদ্যালয়ের টুকিটাকি চত্বর থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে। মিছিল নিয়ে তারা বিভিন্ন ভবন ও আবাসিক হলের সামনে সমাবেশ করে।
মিছিলে সংগঠনের সদস্যরা ‘কেউ পাবে-কেউ পাবে না, তা হবে না তা হবে না’, ‘দেহ নয় মন চাই, প্রেম করে বাঁচতে চাই’, ‘প্রেমের নামে প্রহসণ, বন্ধ কর, করতে হবে’- এমন নানা স্লোগানে পুরো ক্যাম্পাস মাতিয়ে তোলে।
সমাবেশে বক্তারা বলেন, পারিবারিক অস্বচ্ছলতার কারণে মোটরবাইক না থাকায় এবং মেয়েদের চাহিদামত অর্থব্যয় করতে সমর্থ না হওয়ায় আমাদের প্রেম হচ্ছে না। মেয়েদের প্রতারণা বন্ধ করতে হবে। প্রেম মৌল-মানবিক চাহিদা। এখানে সবার সমান অধিকার হওয়া উচিত বলে দাবি করেন তারা। প্রেমের ক্ষেত্রে সকল শিক্ষার্থী সমঅধিকার নিশ্চিত করতে হবে।
আবার অনেক সাধারণ শিক্ষার্থী অভিযোগ করেছেন, যারা প্রেম বঞ্চিত সংঘের নামে মিছিল সমাবেশ করেছে। তাদের অনেকেরই দুই-তিনটা করেও প্রেমিক-প্রেমিকা আছে।
সমাবেশে আসা ক্রপ সায়েন্স বিভাগের শিক্ষার্থী নোমান বিন নজরুল বলেন, আমরা মেয়েদের সামনে অতি ভদ্র হয়ে চলার পরেও তারা আমাদের এড়িয়ে চলে। আসলে এসবের একটা বিহীত হওয়া উচিৎ। প্রত্যকের যাতে প্রেম হয়, সেদিকে সবার সুদৃষ্টি দিতে হবে। প্রেমের জন্য অনেক চেষ্টা করেও হয়নি। কারণ এখন প্রায় সব মেয়েরাই প্রেম করে।
রাবি সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি আব্দুল মজিদ অন্তর ভালোবাসা দিবস নিয়ে মতামত ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, প্রথমত এটা আমাদের সংস্কৃতি নয় কিন্তু এর ব্যপ্তিটা বেড়েই চলেছে। ভালোবাসা নির্দিষ্ট একটি সম্পর্কের মধ্য সীমাবদ্ধ না রেখে আমাদের সকল ভালোবাসা মানবপ্রেমে পরিনত হোক।
বাঙালি সংস্কৃতিতে ষড়ঋতু বসন্তকে নিয়ে ভালোবাসার যেন কমতি নেই। ভালোবেসে ভালো থাকার ভালো লাগা থাকুক পুরোটা সময়জুড়ে এ প্রত্যাশা রাবি ক্যাম্পাসের সবারই। বসন্তের ঝরাপাতার মতো ভালোবাসার স্পর্শ শুধু ফাগুনের জানালায় নয়, দাঁড়িয়ে থাকুক সব ঋতুর, সব মাসের প্রত্যেক দিনের জানালায়।

LEAVE A REPLY