সেমস্ গ্লোবাল ইউএসএ ও সিসিপিআইটি টেক্স চায়না যৌথভাবে আয়োজন করতে যাচ্ছে ১১তম ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইয়ার্ন অ্যান্ড ফেব্রিক শো ২০১৭- উইন্টার এডিশন ’ এবং কনকারেন্ট এক্সিবিশন ‘ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ডেনিম শো ২০১৭- উইন্টার এডিশন’।

ঢাকার বসুন্ধরায় ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটিতে চার দিনব্যাপী এই আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত শুরু হবে।
চায়না, সিঙ্গাপুর, মালয়শিয়া, শ্রীলংকা, ভারত ও বাংলাদেশের প্রায় ১৮০টি প্রতিষ্ঠান এই বৃহত্তম আন্তর্জাতিক প্রদর্শনীতে আংশগ্রহণ করছে।

প্রদর্শনীতে থাকছে সকল প্রকার সুতা, ডেনিম, নিটেড ফেব্রিক্স, ফ্লিস্, ইয়ার্ন অ্যান্ড ফাইবার, আর্টিফিসিয়াল লেদার, এমব্রোয়ডারি, বাটন, জিপার, লিনেন ব্লেন্ডসহ অ্যাপারেল পণ্যের বিশাল সমাহার। প্রদর্শনীটি গার্মেন্টস ইন্ডাস্ট্রির ভোক্তা, উদ্যোক্তা, আমদানিকারক ও সরবরাহকারী সকলের জন্য ওয়ান স্টপ প্লাটফর্ম হিসেবে কাজ করবে।

উল্লেখ্য যে, ১৯৯২ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে সেমস্ গ্লোবাল বিগত ২৪ বছরেরও বেশি সময় ধরে দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় বহুজাতিক প্রদর্শনীর আয়োজক প্রতিষ্ঠান হিসেবে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে। বর্তমানে সংস্থাটি বিশ্বের ৮টি দেশে সেমস্ ইউএসএ, সেমস্ চায়না, সেমস্ ইন্ডিয়া, সেমস্ বাংলাদেশ, সেমস্ শ্রীলংকা, সেমস্ গ্লোবাল এশিয়া প্যাসিফিক সিঙ্গাপুর, সেমস্ ইন্দোনেশিয়া এবং সেমস্ ব্রাজিল নামে নিজস্ব অফিস পরিচালনা করছে।

সিসিপিআইটি টেক্স ১৯৮৮ সালে চায়না ন্যাশনাল টেক্সটাইল অ্যান্ড অ্যাপারেল কাউন্সিলের নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠিত হয়। সেমস্ গ্লোবাল ইউএসএ-এর সাথে সিসিপিআইটি টেক্স চায়না এবার প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে এই এক্সিবিশন আয়োজন করছে।

ডাব্লিউটিও র‌্যাংকিং-এ তৈরি পোশাক রপ্তানির ক্ষেত্রে বাংলাদেশ বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ; যার প্রায় ৭৫০০ গার্মেন্টস এবং টেক্সটাইল কারখানার প্রয়োজনের ৭৫% ফেব্রিক আমদানি করা হয়ে থাকে।

অভিজ্ঞ মহলের মতে, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইয়ার্ন অ্যান্ড ফেব্রিক শো বাংলাদেশের গামেন্টস শিল্পের ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।
ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইয়ার্ন অ্যান্ড ফেব্রিক শো সেমস্ গ্লোবাল এর ইয়ার্ন অ্যান্ড ফেব্রিক শো সিরিজের একটি অংশ যা ব্রাজিল, শ্রীলংকা, ইন্দোনেশিয়া এবং বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে।

 

LEAVE A REPLY