যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে আগামী সপ্তাহে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প একটি নতুন নির্বাহী আদেশ জারি করবেন।

বৃহস্পতিবার আদালতে জমা দেয়া এক নথিতে নতুন করে নিষেধাজ্ঞা জারির পরিকল্পনার কথা জানিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন।

এর আগে সাত মুসলিম দেশের নাগরিকদের ভ্রমণের ওপর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিলেন।

ওই পরিকল্পনা আদালতের নির্দেশে স্থগিত হয়ে গেছে।এর বিরুদ্ধে ট্রাম্প প্রশাসন আইনী লড়াই শুরু করেছিল।

কিন্তু বৃহস্পতিবার আদালতে জানানো হয়েছে আগের নিষেধাজ্ঞা বহালের জন্য আর আইনী লড়াই করবে না ট্রাম্প প্রশাসন।

বরং জাতিকে সন্ত্রাসবাদ থেকে রক্ষা করতে নতুন করে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হবে।

আদালতে উপস্থাপিত নথিতে এবং প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সংবাদ সম্মেলনে নতুন নিষেধাজ্ঞার বিস্তারিত কিছু জানানো হয়নি।

তবে আদালতে সরকারি আইনজীবীরা জানিয়েছে, নতুন আইনে গ্রিনকার্ড নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানকারী এবং বিদেশ থেকে দেশে ফিরতে চাওয়া গ্রিনকার্ডধারীর পরিবর্তে যারা কখনোই দেশটিতে প্রবেশ করেনি এমন বিদেশীদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে।

এদিকে বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প বলেন আগামী সপ্তাহে একটি নতুন নিদের্শ জারি করা হবে।

তিনি বলেন, আমি নিজের দেশের সুরক্ষার ব্যাপারে পিছু হটবো না। আমাদের দেশকে প্রতিরক্ষা করার জন্যই আমি নির্বাচিত হয়েছি।

গত ২৭ জানুয়ারি এক নির্বাহী আদেশে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ইরান, ইরাক, সিরিয়া, ইয়েমেন, লিবিয়া, সোমালিয়া ও সুদানের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্র প্রবেশের ৯০ দিনের জন্য নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।

ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশের পর ওই সাতটি দেশে জন্মগ্রহণকারীরা যুক্তরাষ্ট্র প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়েন। এমনকি মার্কিন গ্রিনকার্ড থাকা সত্ত্বেও অনেককে দেশটির ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ আটক করে।

পরে সিয়াটলের একটি ফেডারেল আদালত ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশকে মার্কিন সংবিধানের লংঘন আখ্যা দিয়ে তা স্থগিত ঘোষণা করেন।

পরে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, হোমল্যান্ড সিকিউরিটি মন্ত্রী জন কেলি এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নবম আপিলাস সার্কিট কোর্টে আপিল করেন।

LEAVE A REPLY