ব্রিটিশ-বাংলাদেশি পাওয়ার অ্যান্ড ইন্সপাইরেশ (বিবিপিআই) ফাউন্ডেশন প্রভাবশালী ও অনুপ্রেরণাদায়ী ১০০ বাঙালির তালিকা প্রকাশ করেছে । বৃহস্পতিবার লন্ডনে ৬ষ্ট বারের মতো এই তালিকা প্রকাশ করা হয়। কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে এবারের তালিকায় পার্সন অব দ্য ইয়ার হিসেবে সম্মাননা পেয়েছেন উদ্ভাবক ও প্রযুক্তিগত উদ্যোক্তা শল্যবিদ শাফী আহমদ।

চিকিৎসা শাস্ত্রে ভার্চুয়াল রিয়্যালিটি প্রয়োগ নিয়ে কাজ করা ডা. শাফী বার্টস মেডিকেল স্কুলের সহকারী ডিন হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি রয়্যাল এয়ারফোর্স ও ব্রিটিশ সরকারের চিকিৎসা বিষয়ক পরামর্শক হিসেবেও কাজ করছেন।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কনজারভেটিভ দলের এমপি পল স্কালি। তিনি বলেন, বাংলাদেশি পরিবারের সন্তানদের এমন সাফল্যের গল্পগুলো সত্যিই অনুপ্রেরণাদায়ক।

বিবিপিআই-এর প্রতিষ্ঠাতা আবদাল উল্লাহ বলেন, ব্রিটেনে বহু বাঙালি আছেন যারা তাদের প্রতিভা ও যোগ্যতার মাধ্যমে কর্মক্ষেত্রে ইর্শনীয় সাফল্যঅর্জন করেছেন। বাংলাদেশি নতুন প্রজন্মের কাছে অর্থ উপার্জন একমাত্র লক্ষ্য নয়। শিক্ষা, চিকিৎসা, ফ্যাশন, প্রযুক্তি কিংবা হালের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ প্রতিটি ক্ষেত্রে বিচরণ করছেন তাঁরা। অভিনব চিন্তা, কঠোর পরিশ্রম কিংবা তুখোড় মেধা দিয়ে তাঁরা সাফল্যের শিখরে ওঠার কথা ভাবছেন।

বিবিপিপিআই-এর সম্পাদক আয়শা কোরেশী বলেন, প্রবাস জীবনে কে কোথায় কি করছে, সে খবর রাখা মোটেও সহজ নয়। নিজেদের সফল মানুষগুলোর সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতে বিবিপিআই-এর এই প্রচেষ্টা। এসব সাফল্যের গল্প অন্যদের সাহসী ও উদ্যোগী হতে উৎসাহ দেয় বলে তিনি মনে করেন।

তালিকায় রয়েছেন লন্ডনের ইম্পেরিয়াল কলেজের বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ের শিক্ষার্থী মহিমা আহমদ। পড়াশোনার পাশাপাশি কাজ করছেন ‘অ্যাপস ফর গুড’ নামে একটি প্রচারাভিযানে (ক্যাম্পেইনে)। প্রযুক্তিগত সৃজনশীলতার মাধ্যমে তরুণেরা আত্মনির্ভরশীল হওয়ার পাশাপাশি কীভাবে মানুষের জীবনে ইতিবাচক প্রভাব রাখতে পারে সেই বার্তাই প্রচার করেন তিনি। নিজেই তৈরি করেছেন বাংলা থেকে ইংরেজি অনুবাদের একটি অ্যাপ।

আর তানিয়া রহমান বড় একটি সফটওয়্যার কোম্পানির হিসাবরক্ষকের কাজ ছেড়ে দিয়েছেন নিজেই ব্যবসা করবেন বলে। তিনি ‘চিট চ্যাট চাই’ নামের একটি রেস্তোরাঁ খুলেছেন; অভিজাত সেই রেস্তোরাঁয় বাংলাদেশ ও ভারতের ঐতিহ্যবাহী ফুটপাতের খাবারসহ (স্ট্রিট ফুড) বিক্রি হয় নানা দেশের বৈচিত্র্যপূর্ণ সব রেসিপি।

জামশেদ হারন ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর সাবেক এই কর্মকর্তা বর্তমানে বায়োফার্মাসিউটিকেলস খাতে সরকারের নীতি ও কৌশল বিষয়ক পরামর্শক হিসেবে কাজ করছেন।

এবারের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন লেবার দলীয় এমপি টিউলিপ সিদ্দিক, ব্রিটিশ কিক বক্সার রুকসানা বেগম, ফরমুলা ওয়ান রেসার মোহাম্মদ জুবায়ের, লন্ডন ট্রেডিশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মামুন চৌধুরী, বিচারক স্বপ্নারা খাতুন, স্থপতি দেলওয়ার হোসেন, সেভরটেক্সের প্রধান নির্বাহী সাইদ আহমদসহ স্ব স্ব ক্ষেত্রে অসাধারণ সাফল্য অর্জনকারী ব্যক্তিরা।

এছাড়াও যেসকল ব্যক্তি ও সংগঠনের নাম রয়েছে তারা হচ্ছেন আব্দুল আলিম, আব্দুল খাদিম খান, এডনান ইমাম, আহজাজ চৌধুরী, আকবর উদ্দিন খান, আখলাখ চৌধুরী কিউসি, আকরাম খান, আনোয়ার চৌধুরী, আসিফ আহমদ, আতিকুল হক, আজাদ আলী, বিসিএ, বীরাঙ্গনা উইম্যান অফ ওয়ার, কারি লাইফ, সেফ অন লাইন, ব্রিটিশ বাংলাদেশ ফ্যাশন কাউন্সিল, ক্যাটারিং সার্কল, ব্রিটিশ কারি এওয়ার্ড, দেলোয়ার হোসেন, দিয়া চক্রবর্তী, নাইনা হোসেন, ইডি হোসেন, ইলিনা আহমদ, এমদাদ রহমান এমবিই, তাজ হোসেন, হামজা চৌধুরী, হারুন খান, হারুন রশিদ, সাঈদ আহমদ, ইনভেটর ক্লাব হোয়াইচ্যাপেল, আব্দুর রহমান, ইকবাল আহমদ ওবিই, জাহেদ রহমান, জেবি রহমান, জুয়েল মিয়া এমবিই, জুনায়েদ মিয়া, কানিজ আলী, খসরুজ্জামান, স্বপ্নারা খাতুন, কাওছার হক, মুকিত মিয়া, মজিদা ক্লার্ক, মুমিন চৌধুরী, মিনহাজ হুদা, মিসবাহ আহমদ, মিরাতুল মুকিত, মিজানুল হক, মোহাম্মদ নবাব উদ্দিন, মহিমা আহমদ, মোহাম্মদ হক কিউসি, নাসিমা আহমদ, নাজিন রহমান সিবিই, নওশেদ শাহ, নুসিবা মোহাম্মদ, অঞ্জলি রূপ, ব্যারনেস পলা উদ্দিন, রফিক ইবনে জুবায়ের, রানা বেগম, রানু মিয়া, রেশমিন চৌধুরী, রেসলেস্ট বিং, রুপোল আলী, রুবি হাম্মার এমবিই, রুমিনা বেগম, রুপা হক এমপি, রুকশানা বেগম, রুশনারা আলী এমপি, রুজিনা হোসেন, সাইমা চৌধুরী, সেলিম চৌধুরী, সাবিল ফিরোজ, সাবিনা বেগমদ, শাহ খুরেশী, শাম আহমদ, শাফলা সালিক, সারিনা আলী, শরিফ বান্না এমবিই, সুফিয়ান মিয়া, সুলতান চৌধুরী, তাহমিনা আনাম, তানিয়া রহমান, আমিন আলী, তাসমিন লুসিয়া খান, তারেক হোসেন, টিউলিপ সিদ্দিক এমপি, ইউকে বিসিসিআই, ডাব্লিউ বিসিসি, ইয়াওর মেহবুব, রুজি মজুমদার, জাকির খান, জশশেদ হারুন, জিনাত ইসলাম, জিদান মিয়া, জুবায়ের হক।

LEAVE A REPLY