উন্নয়নশীল দেশগুলোকে সহযোগিতার ক্ষেত্রে জাতিসংঘের বিদ্যমান কর্মকাণ্ড যথেষ্ট নয় এবং স্বল্পোন্নত দেশগুলোতে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যসমূহ (এসডিজি) বাস্তবায়নের জন্য অবশ্যই অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বরাদ্দ দেওয়া প্রয়োজন। শুক্রবার জাতিসংঘ সদরদপ্তরে  ‘এজেন্ডা ২০৩০ এর সমন্বিত বাস্তবায়ন: স্বল্পোন্নত ও স্থলবেষ্টিত উন্নয়নশীল দেশ, উন্নয়নশীল ক্ষুদ্র দ্বীপরাষ্ট্র এবং যুদ্ধাবস্থা থেকে উত্তরণশীল দেশসমূহে জাতিসংঘ উন্নয়ন ব্যবস্থার ভূমিকা’ বিষয়ক আলোচনায় একথা বলেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আব্দুল মান্নান।
চতুর্বার্ষিক সামগ্রিক পলিসি রিভিউ এর উপর জাতিসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিষদের আলোচনায় অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী উদ্বেগের সঙ্গে বলেন, জাতিসংঘের উন্নয়ন সহায়তা ২০১৪ সালে ৫৩ শতাংশ থেকে ২০১৫ সালে ৪৭ শতাংশে নেমে এসেছে।
স্বল্পোন্নত দেশসমূহের ক্ষুধা ও দারিদ্র নির্মূল, জনস্বাস্থ্য, শিক্ষাসহ অন্যান্য সামাজিক সেবার উন্নয়ন, জলবায়ুর প্রভাব মোকাবিলা এবং নিজস্ব সামর্থ্য সৃষ্টিতে অবদান রাখতে প্রতিমন্ত্রী জাতিসংঘ উন্নয়ন ব্যবস্থায় আরও অর্থ সাহায্যের প্রতি জোর দেন তিনি।
প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশের জাতীয় উন্নয়ন এজেন্ডা ‘রূপকল্প-২০২১’ বাস্তবায়নে বর্তমান সরকারের প্রতিশ্রুতি ও এমডিজি বাস্তবায়নে সরকারের সফলতার কথা তুলে ধরেন। পাশাপাশি এসডিজিকে বাংলাদেশের জাতীয় উন্নয়ন পরিকল্পনার সাথে সমন্বয় করা হয়েছে এবং এর বাস্তবায়ন এগিয়ে চলছে বলেও উল্লেখ করেন।
এ সভায় বাংলাদেশের পাশাপাশি প্যানেলিস্ট হিসেবে আরও অংশগ্রহণ করে তানজানিয়া, মালদ্বীপ ও প্যারাগুয়ে। এসময় বিভিন্ন সদস্য দেশ ও উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠানসমূহ প্যানেলিস্টদের প্রতি বিভিন্ন প্রশ্ন রাখেন।

LEAVE A REPLY