নিউজ ডেস্কঃ
নতুন নেতৃত্ব নির্বাচন করতে প্রায় ১৪ বছর পর সম্মেলনে যাচ্ছেন মহিলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বেলা ১১টায় রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে এ সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন।

সম্মেলনের সব প্রস্তুতি ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংগঠনের সভাপতি আশরাফুন্নেসা মোশাররফ। ২০০২ সালের ৬ জুলাই প্রতিষ্ঠিত মহিলা আওয়ামী লীগের সর্বশেষ সম্মেলন হয় পরের বছর ১২ জুলাই। ওই সম্মেলনে আশরাফুন্নেসা মোশাররফ সভাপতি ও পিনু খান সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

নেতাকর্মীদের অনেকেই মনে করেন, দীর্ঘদিন নেতৃত্বে পরিবর্তন না আসায় মহিলা আওয়ামী লীগের কার্যক্রম ঝিমিয়ে পড়েছে।

সংগঠনের কেন্দ্রীয় এক নেত্রী বলেন, “১৪ বছর ধরে উনারাই নেতা। তাহলে কীভাবে অন্যরা সংগঠন করতে উৎসাহ পাবে?”

তার ভাষায়, দল ঝিমিয়ে পড়ায় সাংগঠনিক কার্যক্রমেও স্বকীয়তা হারাতে বসেছে মহিলা আওয়ামী লীগ।“আমরা আশা করছি, এই সম্মেলনে নতুন নেতৃত্ব আসবে, যারা দলকে এগিয়ে নেবেন।”

সারা দেশে মহিলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম ‘দুর্বল হয়ে পড়েছে’ জানিয়ে বর্তমান সম্পাদকমণ্ডলীর এক সদস্য বলেন, “এ অবস্থায় ভালো নেতৃত্ব আসবে- এটাই আশা করি। আমরা চাই নতুন নেতৃত্ব সংগঠনকে শক্তিশালী করে আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সহায়কের ভূমিকায় কাজ করুক।”

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক পিনু খান বলেন, “নেত্রী (শেখ হাসিনা) আমাকে সংগঠনের দায়িত্ব দিয়েছিলেন। আমি সংগঠনের জন্য কাজ করেছি। কাদের হাতে পরবর্তী নেতৃত্ব আসবে সেটা নেত্রীই ভালো জানেন।”

সারা দেশ থেকে প্রায় ছয় হাজার নেতাকর্মী এবারের সম্মেলনে অংশ নেবেন বলে জানান পিনু খান।

এ সম্মেলনের প্রস্তুতি জানাতে শুক্রবার ধানমন্ডিতে এক সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, “আধুনিক একটা সাংগঠনিক প্রস্তুতি নিয়ে আমরা যেন নির্বাচনী লড়াইয়ে অংশ নিতে পারি- এমন পরিকল্পনা করা হয়েছে। এর অংশ হিসেবে আমাদের সব সহযোগী সংগঠনের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির সম্মেলন করতে যাচ্ছি। এর মধ্যে প্রথমে শনিবার মহিলা আওয়ামী লীগ এবং ১১ মার্চ যুব মহিলা লীগের সম্মেলন হবে।”

মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আশরাফুন্নেসা মোশাররফ বলেন, সম্মেলনকে সফল করতে সংগঠনের কেন্দ্রীয় ও মহানগর নেতাদের নিয়ে ২৭ সদস‌্যের একটি কমিটি কাজ করেছে। এছাড়া ১০টি উপ-কমিটি সার্বিক বিষয় দেখভাল করছে।

LEAVE A REPLY