শুক্রবার এক প্রতিবেদনে বিবিসি জানায়, অনেকদিন ধরেই উইন্ডোজ ১০ ব্যবহারকারীদের অভিযোগ ছিল কিছু কিছু আপডেট নেওয়ার পর বাধ্যতামূলকভাবে কম্পিউটার পুনরায় চালু করতে হয় যা বেশ বিরক্তিকর। তা ছাড়াও অনেক ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ কাজ করার সময়ও রিবুটের ঘটনা ঘটে।

মার্কিন এই প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানটি এক ব্লগে জানায়, এখন থেকে যেসব ব্যবহারকারী মাইক্রোসফটের উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার করছেন তারা নিরাপত্তা আপডেট কখন নেবেন, নোটিফিকেশন পাওয়ার তিন দিনের মধ্যে তা নিজে থেকেই নির্ধারণ করে দিতে পারবেন। এ ছাড়াও পরবর্তীতে এই নির্ধারিত সময় পুনরায় পরিবর্তনও করা যাবে।

অ্যাপল গ্রাহকরা ইতোমধ্যেই এই সুবিধা ভোগ করছেন। তারা ম্যাক অপারেটিং সিস্টেমের আপডেট পিছিয়ে দিতে পারেন বা রাতের বেলা তা স্বয়ংক্রিয়ভাবে ইনস্টল করার জন্য নির্বাচন করতে পারেন যার মধ্যে অপরিহার্য রিবুটও অন্তর্ভুক্ত।

উইন্ডোজের এই পরিবর্তন ‘ক্রিয়েটরস আপডেট’ নামের এক প্রকল্পের অংশ, যা জোরপূর্বক রিবুট বিষয়ে ব্যবহারকারীদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গ্রহণ করা হয়েছে, জানিয়েছেন মাইক্রোসফটের একজন প্রোগ্রাম ব্যবস্থাপনা পরিচালক জন কেবল।

“যা আমরা সবচেয়ে স্পষ্টভাবে শুনেছি তা হচ্ছে আপনারা উইন্ডোজ ১০-এর আপডেট ইনস্টলের সময় আরও অধিক নিয়ন্ত্রণ চান”-বলেন কেবল। “আমরা আরও শুনেছি যে অপ্রত্যাশিত রিবুট কাজে সমস্যা করে, বিশেষত যদি তা ভুল সময়ে হয়”-যোগ করেন তিনি।

অন্যদিকে, বিশেষজ্ঞরা বলছেন দেরিতে নিরাপত্তা আপডেট ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে। যুক্তরাজ্যের সারে ইউনিভার্সিটি’র সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক অ্যালান উডওয়ার্ড জানান, আপডেটে বিলম্ব হ্যাকারদের সহায়তা করতে পারে।

“আমি এই ধারণাটি নিয়ে শতভাগ নিশ্চিত নই, কারণ প্রায়ই এইসব আপডেটে গুরুত্বপূর্ণ নিরাপত্তা সংশোধন থাকে এবং সত্যিই আপনি চাইবেন যে যত দ্রুত সম্ভব তা মেশিনে স্থাপিত হক”- বিবিসিকে বলেন তিনি।

এ ছাড়াও ‘ক্রিয়েটিভ আপডেট’ এর অংশ হিসেবে মাইক্রোসফট গোপনীয়তা সেটিংস-এরও পরিবর্তন সাধন করছে বলে জানা গেছে।

LEAVE A REPLY