নিউজ ডেস্কঃ
শিক্ষানবিশ চিকিৎসকরা স্বাস্থ্যমন্ত্রীর মৌখিক আশ্বাসেও ধর্মঘট ভাঙছিলেন না, তবে সহকর্মীদের শাস্তি মওকুফে মন্ত্রণালয়ের চিঠি দেখে কাজে ফিরেছেন তারা।

বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের শিক্ষানবিশ চিকিৎসকরা চার দিন কর্মবিরতির পর সোমবার সন্ধ্যায় কাজ শুরু করে।

এর আগে সকালে শিক্ষানবিশ চিকিৎসকদের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে তাদের বগুড়ার চার সহকর্মীর শাস্তি মওকুফের আশ্বাস দিয়েছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

তখন কয়েকটি মেডিকেল কলেজের শিক্ষানবিশ চিকিৎসকরা ধর্মঘট ভাঙলেও বগুড়ার চিকিৎসকরা আনুষ্ঠানিক চিঠি না পাওয়া পর্যন্ত কর্মবিরতি চালিয়ে যাবে বলে জানায়।

এরপর সন্ধ্যা পৌনে ৬টায় বগুড়ার শিক্ষানবিশ চিকিৎসকদের মুখপাত্র কুতুব উদ্দিন হাসপাতাল চত্বরে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, মন্ত্রণালয়ের চিঠি আসার পর কাজে ফিরেছেন তারা।

তিনি বলেন, “অযৌক্তিকভাবে চারজন ইন্টার্ন চিকিৎসকের বিরুদ্ধে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করার পর তা আজ স্থগিত করা হয়েছে।

এ সংক্রান্ত একটি চিঠি হাসপাতাল পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম মাসুদ আহসান ইন্টার্ন চিকিৎসকদের দেওয়ার পর ধর্মঘট কর্মসূচি তুলে নিয়ে কাজে যোগদান করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এখন থেকেই আমরা কাজে যোগ দিচ্ছি।”

সিরাজগঞ্জের এক রোগীর স্বজনকে মারধরের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বগুড়া মেডিকেলের চার শিক্ষানবিশ চিকিৎসকের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিয়েছিল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

গত ২ মার্চ শাস্তির পর কর্মবিরতি শুরু করে বগুড়ার শিক্ষানবিশরা। এরপর দেশের অন্য মেডিকেল কলেজের শিক্ষানবিশ চিকিৎসকরাও তাদের সমর্থনে একই কর্মসূচি শুরু করে। তাদের পক্ষে অবস্থান নেয় চিকিৎসকদের সংগঠন বিএমএ ও স্বাচিপ।

কুতুব উদ্দিন বলেন, “যেহেতু আমাদের আন্দোলনের সাথে আরও অনেক মেডিকেল কলেজের ইন্টার্ন চিকিৎসকরা আন্দোলনে যোগ দিয়েছিলেন, তাদের সাথে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিয়ে বগুড়া থেকে আমি ধর্মঘটের প্রত্যাহারের ঘোষণা দিচ্ছি।”

কয়েকটি মেডিকেল কলেজের ইন্টার্ন চিকিৎসক নেতারা জানিয়েছিলেন, বগুড়া মেডিকেলের সাজা পাওয়া চারজনকে কাজে বহাল করার দাপ্তরিক প্রক্রিয়া শেষ হলেই তারা কাজে যোগ দেবেন।

তার আগে সোমবার ঢাকার ধানমন্ডিতে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের বাসায় চিকিৎসক ও ইন্টার্ন চিকিৎসকদের প্রতিনিধিদের এক বৈঠকে ধর্মঘট প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত হয় বলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য কর্মকর্তা পরীক্ষিৎ চৌধুরী জানান।

স্বাচিপ সভাপতি ইকবাল আর্সলান বৈঠকের পর বলেন, মন্ত্রীর আশ্বাস পাওয়ার পর বিভিন্ন হাসপাতালে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা ধর্মঘট প্রত‌্যাহার করে নিয়েছেন বলে তিনি খবর পেয়েছেন।

LEAVE A REPLY