পর্নো ছবির প্রতি মাত্রাতিরিক্ত আসক্তি প্রেমের সম্পর্ক থেকে মানুষকে দূরে সরিয়ে রাখে। শুধু তা–ই নয়, এই আসক্তি এতটাই ভয়ংকর যে এতে আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি তৈরি হয় এবং প্রেমিকার কাছে নিজেকে তাচ্ছিল্যের পাত্র বলে মনে হয়। এর এতেই ওই প্রেমের সম্পর্ক তো টেনে নিয়ে যাওয়া দূরের কথা, বরং ডেটিংয়েও অনীহা তৈরি হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের ব্রিগহাম ইয়াং ইউনিভার্সিটির এক গবেষণায় এ ফল পাওয়া গেছে বলে দাবি করেছেন গবেষকেরা। গবেষকদের পরামর্শ, যদি নিজেই বুঝে থাকেন, আপনি পর্নো ছবিতে আসক্ত, তাহলে আজই তা দেখা বন্ধ করে দিন।

আজ মঙ্গলবার হিন্দুস্তান টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, ব্রিগহাম ইয়াং ইউনিভার্সিটির গবেষকেরা ৩৫০ জন পুরুষ ও ৩৩৬ জন নারীর ওপর এ গবেষণাটি করেছেন। গবেষণা প্রতিবেদনটি দ্য জার্নাল অব সেক্স রিসার্চে প্রকাশিত হয়েছে।

গবেষণা প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, কেউ যদি মাত্রাতিরিক্ত পর্নো দেখেন কিংবা নিজেকে পর্নো আসক্ত মনে করেন, তাহলে নতুন প্রেমের সম্পর্ক শুরু ও আগের সম্পর্ক চালিয়ে নিতে তাঁরা খুব হীনম্মন্যতায় ভোগেন।

ব্রিগহাম ইয়াং ইউনিভার্সিটির গবেষক নাথান লিওনহার্ট বলেন, ‘যাঁরা নিজেরাই মনে করেন যে তাঁরা পর্নোগ্রাফিতে আসক্ত, তাঁরা প্রেমিক হিসেবে নিজেদের অবাঞ্ছিত বা নষ্ট হওয়া পণ্য মনে করেন। এমনকি ডেটিংয়ের মতো বিষয়ে তাঁরা নিজেদের মূল্যহীনও মনে করেন।’

গবেষণায় নাথান লিওনহার্ট আরও বলেন, ‘কেউ যদি পর্নোগ্রাফির প্রতি আসক্তি নিয়ন্ত্রণ করা উচিত বুঝতে চেষ্টা করেন, তাহলে হুট করেই তিনি একাকিত্বে ভুগবেন। আর এ কারণেই পুরোপুরি পর্নোগ্রাফির প্রতি আসক্তি নিয়ন্ত্রণ করা তাঁর পক্ষে সম্ভব হয় না।’

গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, যাঁরা পর্নোগ্রাফিতে আসক্ত মনে করেন, তাঁরা নিজেরাই নিজেদের প্রবোধ দেন, ‘আমি পর্নোগ্রাফিতে আসক্ত, এ কারণে ডেটিংয়ে আমার কোনো কদর নেই; যেহেতু আমি পর্নোগ্রাফিতে আসক্ত, তাই ডেটিংয়ে যাওয়া উচিত হবে না; প্রেমিকা বা সঙ্গিনীর কাছে আমার পর্নো আসক্তির ব্যাপারে খোলাসা করে বলা যাবে না, কারণ সে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া দেখাতে পারে। আর এটা খুব ভয়ের ব্যাপার হবে।’