নওগাঁর মান্দায় ভালোবাসার মিলন না হওয়ায় একই রশিতে গলায় ফাঁস দিয়ে প্রেমিক-প্রেমিকা আত্মহত্যা করেছেন।

এরা হলেন, উপজেলার প্রসাদপুর ইউনিয়নের চকরাজাপুর গ্রামের ওয়াজেদ আলীর ছেলে গোলাম রাব্বানী (২২) ও মৃত মকবুল সরদারের মেয়ে তসলিমা আক্তার (১৮)।

বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার চকরাজাপুর গ্রামের গোদাবিলা নামক বিলের মাঝখানে একটি আম গাছ থেকে তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গোলাম রাব্বানী উপজেলার সাতবাড়িয়া টেকনিক্যাল বিএম কলেজ থেকে চলতি এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন। তসলিমা আক্তার এনায়েতপুর আইডিয়াল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছেন। দুজনের মধ্যে দীর্ঘদিন থেকে প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। তারা বিয়ে করতে সম্মত হয়। কিন্তু তসলিমার পরিবারের আর্থিক অবস্থা তেমন ভালো না হওয়ায় গোলাম রাব্বানীর পরিবার বিয়েতে অস্বীকৃতি জানায়। এ নিয়ে দুজনের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দেয়।

মঙ্গলবার তসলিমা তার মায়ের সঙ্গে রাতের খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। রাতে কোনো এক সময় বাড়ি থেকে বেরিয়ে এসে বাড়ির পাশে গোদাবিলা নামক বিলের মাঝখানে একটি আম গাছের ডালে রশির দুই মাথায় গোলাম রাব্বানী ও তসলিমা আক্তার গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। বুধবার ভোর রাতে তাসলিমার মা খোদেজা বেগম মেয়েকে খোঁজাখুজি করেন। বাড়ির বাহিরে এসে দেখেন বিলের মাঝে আম গাছে দুজনে ঝুঁলে আছে।

এ বিষয়ে মান্দা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনিছুর রহমান বলেন, দুজনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। মেয়ের পরিবার থেকে মেয়েকে অন্য ছেলের সঙ্গে বিয়ে দেয়ার কথা হচ্ছিল। ক্ষোভের বসে তারা আত্মহত্যা করেছে। সকালের স্থানীয়দের মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।