রংপুরে পুকুরে গোসল করার অপরাধে শিশু রাকিবকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে আসামি নাজমুলকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। আজ বুধবার দুপুরে রংপুরের বিশেষ জজ আদালতের বিচারক নরেশ চন্দ্র সরকার এ রায় দেন।

সরকার পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন বিশেষ পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) রথিশ চন্দ্র ভৌমিক এবং আসামি পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট আবুল হোসেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০০৮ সালের ১৭ জুলাই রংপুর নগরীর খামারপাড়া এলাকায় আবু তালেব অ্যাডভোকেটের পুকুরে শিশু রাকিবসহ তিন বন্ধু গোসল করতে যায়। পুকুরে নেমে গোসল করার সময় দারোয়ান শহিদুল তাদের গালাগাল দিয়ে চলে যেতে বলেন। এ সময় তারা পুকুর থেকে উঠে চলে যাওয়ার সময় আসামি নাজমুল তাদেরকে ধাওয়া করে রাকিবকে ধরে ফেললেও অন্যরা পালিয়ে যায়। এরপর নাজমুল শিশু রাকিবকে গাছের ডাল ভেঙে বেদম মারধর করে। একপর্যায়ে রাকিবকে ধরে আছাড় দিয়ে মাটিতে ফেলে দিলে ঘটনাস্থলেই মারা যায় সে।

খবর পেয়ে পুলিশ রাকিবের লাশ উদ্ধার করে রংপুর মেডিক্যাল কলেজের মর্গে পাঠায়। ওই ঘটনায় নিহত রাকিবের বাবা আয়নাল বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ তদন্ত শেষে আসামি শহিদুল ও নাজমুলের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করে। বিচার শুরু হওয়ার পর ১৩ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য ও জেরা শেষে আসামি নাজমুলকে দোষী সাব্যস্ত করে তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ২৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো তিন বছরের সশ্রম কারাদণ্ডের রায় দেন বিচারক।

আসামি শহিদুলের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে খালাস দেওয়া হয়। রায় ঘোষণার সময় নিহত শিশু রাকিবের বাবা আয়নাল আদালতে উপাস্থিত ছিলেন। তিনি বলেন, “আসামির ফাঁসি হলে আরো খুশি হতাম। তারপরও আদালতের রায় মেনে নিয়েছি। ”